advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

‘শ্বাসকষ্টে’ মৃত্যু, হাসপাতাল থেকে স্ত্রীর লাশ আসার পর পলাতক স্বামী

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০৬:৫৩ পিএম | আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০৭:২৮ পিএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার নিগুয়ারী ইউনিয়নের গুইয়ারপাড় গ্রামে যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ শুক্রবার সকালে হাসপাতাল থেকে লাশ বাড়িতে আনার পর পুলিশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে। পাগলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুজ্জামান জানিয়েছেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলেই তারা এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

ওই গৃহবধূর নাম রোকসানা আক্তার সাদিয়া (২৮)। তিনি মাখল গ্রামের মৃত মোফাজ্জল হোসেনের মেয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চার বছর আগে গুইয়ারপাড় গ্রামের কেরামত আলীর ছেলে রাসেল মিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয় সাদিয়ার। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে দাম্পত্য কলহ চলছিল। দুই বছর ও সাত মাস বয়সী দুটি ছেলে সন্তান রয়েছে তাদের। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে সাদিয়ার ‘শ্বাসকষ্ট’ শুরু হলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সাদিয়া। আজ শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে একটি অ্যাম্বুলেন্স এসে তার লাশ রেখে যায়। পরে প্রতিবেশীরা সাদিয়ার পরিবারকে মৃত্যুর সংবাদ দেন। সাদিয়ার মৃত্যুর পর থেকেই তার স্বামী রাসেল পলাতক রয়েছেন।

সাদিয়ার ভাই আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, বিয়ের পর থেকেই রাসেল যৌতুকের জন্য চাপ দিতে থাকে। এ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে সম্পর্কের টানাপড়েন চলছিল। মাটি কাটার ভেকু কিনতে রাসেলকে ১০ লাখ টাকা যৌতুকও দেওয়া হয়। কিন্তু তাতেও মন ভরেনি তার। সাদিয়ার ওপর অত্যাচার চালিয়ে যেতে থাকে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমার বোনকে ওরা খুন করেছে। প্রতিবেশিদের কাছে আমরা সাদিয়ার মৃত্যুর সংবাদ পাই। সেখানে গিয়ে সাদিয়ার গলায় আঘাতের চিহ্ন দেখে সন্দেহ হলে ৯৯৯ এ কল দিয়ে পাগলা থানা পুলিশে খবর দেই। আমার বোনের হত্যাকারীদের বিচার চাই।’

advertisement
advertisement