advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

যৌন নিপীড়নের অভিযোগ
অ্যান্ড্রুর রাজমর্যাদা বাতিল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৫ জানুয়ারি ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২২ ০৯:১৪ এএম
advertisement

যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্য, ডিউক অব ইয়র্ক প্রিন্স অ্যান্ড্রুর সামরিক ও রাজকীয় মর্যাদা বাতিল করা হয়েছে। রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের আদেশের পর অ্যান্ড্রু আর তার রাজপদবি ‘হিজ রয়্যাল হাইনেস’-এর ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারবেন না। খবর বিবিসির।

প্রিন্স অ্যান্ড্রু তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তার ঘনিষ্ঠ এক সূত্র স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তিনি অস্বীকার করেই যাবেন।

ব্রিটিশ রাজসিংহাসনের উত্তরাধিকারীদের তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছেন প্রিন্স অ্যান্ড্রু। তিনি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের দ্বিতীয় ছেলে।

বাকিংহাম প্যালেসের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, রানির অনুমোদনের পর ডিউক অব ইয়র্কের সামরিক ও রাজকীয় মর্যাদা ফেরত নেওয়া হয়েছে। তিনি আর কোনো দায়িত্বে থাকবেন না। তাকে মামলায় লড়তে হবে একজন বেসামরিক নাগরিক হিসেবে।

বিবিসি বলছে, হ্যারি ও মেগানের মতো প্রিন্স অ্যান্ড্রুও ‘হিজ রয়্যাল হাইনেস’ ধরে রাখতে পারবেন। তবে কোনো সরকারি কাজে তিনি এটি ব্যবহার করতে পারবেন না।

ভার্জিনিয়া জিউফ্রে নামের এক নারী যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে অভিযোগ করেছিলেন, ২০০১ সালে প্রিন্স অ্যান্ড্রুর হাতে যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন তিনি। সে সময় এ নারীর বয়স ছিল মাত্র ১৭ বছর। মার্কিন ধনকুবের জেফরি এপস্টেইন তাকে অ্যান্ড্রুর হাতে তুলে দিয়েছিলেন। প্রিন্স অ্যান্ড্রুর বন্ধু এপস্টেইন। শিশু-কিশোরীদের পাচার ও জোর করে যৌনদাসীর কাজ করানোর মতো গুরুতর অভিযোগে কারাবাসে থাকা অবস্থায় আত্মহত্যা করেন এপস্টেইন।

advertisement
advertisement