advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী থেকে গ্রেপ্তার চার
প্রবাসীর বাসায় চুরিতে মধু!

চট্টগ্রাম ব্যুরো
১৫ জানুয়ারি ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৫ জানুয়ারি ২০২২ ০৩:২২ এএম
advertisement

চুরির জন্য প্রবাসীর বাসাই তাদের প্রথম পছন্দ। চারজনের দলের প্রধান সাইফুদ্দিনের (৩২) স্ত্রী রুমা আক্তার (৩৮) সারাদিন বুয়ার বেশে কাজের খোঁজে আশপাশের বাড়িগুলোর তথ্য নেন। তারপর সময়-সুযোগ বুঝে দ্রুত চুরি করে এলাকা ত্যাগ করেন পুরো দলের সদস্যরা। গত ১০ থেকে ১৩ জানুয়ারি পর্যন্ত চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীর চরজব্বার এলাকায় অভিযান চালিয়ে এ চারজনকে বায়েজিদ থানাপুলিশ গ্রেপ্তার করে। এ সময় চুরি যাওয়া ১৩ ভরি স্বর্ণালঙ্কার, একটি এলইডি টেলিভিশন ও বিদেশি মুদ্রা জব্দ করা হয়। দলের অন্য দুই সদস্যের নাম সাইফুল

ইসলাম (২২) ও মোহাম্মদ আলম (২৪)। এদের মধ্যে সাইফুদ্দিন ও রুমার বাড়ি নোয়াখালীর মাইজদী, সাইফুলের বায়েজিদ এবং মোহাম্মদ আলমের বাড়ি চন্দনাইশ। তাদের কাছ থেকে ঘরের তালা ভাঙার বিভিন্ন সরঞ্জামও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, গত ২৫ ডিসেম্বর নগরীর আতুরার ডিপো তুলা কোম্পানির বাড়ি এলাকায় এক সৌদি প্রবাসীর বাসায় চুরি হয়। পারিবারিক অনুষ্ঠানে তারা এক আত্মীয়ের বাড়িতে চার দিনের জন্য বেড়াতে যান। সেখান থেকে এসে দেখেন তাদের ঘরের তালা ভাঙা এবং স্বর্ণালঙ্কারসহ মূল্যবান জিনিসপত্র ও নগদ দেশি-বিদেশি মুদ্রা চুরি হয়ে গেছে। বিষয়টি জানিয়ে বায়েজিদ থানায় মামলা করেন ওই প্রবাসীর ছেলে।

বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুজ্জামান আমাদের

সময়কে বলেন, এ চক্রটি দীর্ঘদিন নগরীর আতুরার ডিপো ও আশপাশের এলাকায় বসবাস করে আসছে। তাদের দলনেতা সাইফুদ্দিনের স্ত্রী রুমা আক্তার বুয়ার চাকরি করার নাম করে এ বাড়ি ওই বাড়ি ঘুরে বেড়ান। কোনো বাড়ির লোকজন বেড়াতে গেছেন শুনলেই চুরির পরিকল্পনা শুরু করেন। তবে তাদের পছন্দ প্রবাসীরা। এর কারণ হিসাবে ওসি কামরুজ্জামান বলেন, প্রবাসীরা দেশে এসেই তাদের আত্মীয়দের বাড়িতে বেড়ানো শুরু করেন। আর তাদের বাসায় নগদ অর্থ ও স্বর্ণালঙ্কার বেশি থাকে। ফলে এসব সহজেই পাওয়া যায়। আর চুরি করার পর রুমা আক্তারই সেগুলো আবার চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীর বিভিন্ন পরিচিতজনের মাঝে বিক্রি করেন।

advertisement
advertisement