advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

তামিমের ফিফটির পর রিয়াদের ঝড়, খুলনার সামনে ঢাকার বড় চ্যালেঞ্জ

ক্রীড়া প্রতিবেদক
২১ জানুয়ারি ২০২২ ০৮:২২ পিএম | আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২২ ০৮:২৬ পিএম
ছবি : বিসিবি
advertisement

বিপিএলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বড় সংগ্রহ গড়েছে মিনিস্টার ঢাকা। তামিম ইকবাল ও মোহাম্মদ শেহজাদের দাপুটে শুরুর পর শেষ দিকে ঝড় তোলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। তিন ব্যাটারের দারুণ ইনিংসে ভর করে মুশফিকুর রহিমের খুলনা টাইগার্সের সামনে ১৮৪ রানের লক্ষ্য দাঁড় করিয়েছে ঢাকা। ব্যাট হাতে পঞ্চশ রানের দারুণ ইনিংস উপহার দিয়েছেন তামিম।

শুক্রবার মিরপুর শের-ই বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বিপিএলের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয় দুই দল। টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রান করে ঢাকা।

মেহেদী হাসানকে তার মাথার উপর দিয়ে চার মেরে ইনিংসের সূচনা করেছিলেন ওপেনার মোহাম্মদ শাহজাদ। ঝড়ো ইনিংস খেলে আউট হয়েছেন ফিফটি থেকে ৮ রান দূরে থেকে। শাহজাদ না পারলেও ধীরে চলো নীতিতে শুরু করা তামিম ঠিকই তুলে নিয়েছেন বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) এবারের আসরের প্রথম ফিফটি।

ঢাকার শুরুটা হয়েছে শাহজাদ ঝড়ে। এক পাশে ঝড় তুলছিলেন শাহজাদ, অন্য প্রান্তে আগলে রেখেছিলেন তামিম। এক পরিসংখ্যানেন স্পষ্ট হবে এটি। পাওয়ার প্লের ৬ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ঢাকা তোলে ৫৬ রান। তাতে শাহজাদ একার রানই ছিল ২২ বলে ৩৯। আর তামিমের ১৪ বলে ১৪। সেই জায়গা থেকে আর মাত্র ৩ রান যোগ করে রনি তালুকদারের সরাসরি থ্রোতে রানআউট হয়ে ফেরেন শাহজাদ। ২৭ বলে ৪২ রান করেন এই আফগান।

শাহজাদ যেখানে শেষ করেছেন সেখানে শুরু হয়েছে তামিমের। ফরহাদ রেজাকে ১১তম ওভারে টানা ৩ চারে যেন সেই বার্তাই দিয়েছেন। সেই রেজার বলেই লং অনে ঠেলে দিয়ে ৪১ বলে দেখা পান টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ৪১তম ফিফটির। তবে আর বেশিদূর যেতে পারেননি, আউট হয়ে যান ৫০ রানেই। ৭ চারে ৪২ বলে এই রান করেন তামিম।

টিম কম্বিনেশনের কারণে ওপেনার নাঈমকে নামতে হয়েছে তিন নম্বরে। কিন্তু আলো ছড়াতে পারেননি। ১১ বলে ৯ রান করে ফেরেন সাজঘরে। ক্রিজে এসে নতুন ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল ৬ মেরে ঝড়ের আভাস দিয়েছিলেন। কিন্তু পরের বলেই ফিরলেন অদ্ভুত রান আউট হয়ে। পেরেরার বলে শর্ট থার্ডম্যান অঞ্চলে ঠেলে দিয়ে দ্রুত রান নিতে চেয়েছেন রাসেল, মেহেদী হাসান ধরেই থ্রো করলে প্রথমে লাগে স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্টাম্পে, এরপর নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্টাম্পে। রাসেল যাওয়ার আগেই নন স্ট্রাইকিং প্রান্তের স্টাম্পে লাগলে শেষ পর্যন্ত তাকে ফিরতে হয় সাজঘরে। ৩ বলে ৭ করেন এই ক্যারিবীয়ান সুপারস্টার।

শেষের দিকে মাহমুদউল্লাহর ২০ বলে দুই চার ও তিন ছয়ের ঝড়ো ৩৯ রান ও ইসুরু উদানার দুই বলে ৬ রানে ভর করে ১৮৩ রানের সংগ্রহ গড়ে ঢাকা।