advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পানশিরে বেপরোয়া তালেবান
শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
১৭ মে ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৬ মে ২০২২ ১০:৩৮ পিএম
advertisement

আফগানিস্তানে ক্ষমতায় থাকা তালেবানরা দেশটির পানশিরে মানবতাবিরোধী অপরাধ করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিরস্ত্র মানুষকে মারধর করছে তারা। গতকাল সংবাদমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

advertisement

তালেবানরা গত বছর আগস্ট মাসে ক্ষমতায় ফিরে আসে। সেই সময় এই পানশিরে তালেবানবিরোধীরা একাট্টা হয়ে লড়াই করে। এমনকি অনেক আগে থেকেই পানশির তালেবানবিরোধী ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। এখন ক্ষমতা ফিরে পাওয়ার পর সেখানকার বাসিন্দাদের ওপর তারা চড়াও হয়েছে। স্থানীয় এক বাসিন্দা বিবিসিকে জানিয়েছেন, তার বয়োজ্যেষ্ঠ এক নিরস্ত্র আত্মীয়কে তালেবানরা গুলি করেছে। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, তালেবানরা একজনকে বেধড়ক মারধর করেছে। ওই প্রত্যক্ষদর্শীর বয়ান অনুযায়ী- অজ্ঞান হাওয়ার আগ পর্যন্ত তালেবানরা তাকে পিটিয়েছে। তবে তালেবানের স্থানীয় মুখপাত্র এ ধরনের অপরাধের কথা অস্বীকার করেছেন।

বিবিসি বলছে, এ ধরনের লড়াই স্থানীয়ভাবে সংঘটিত হচ্ছে, যা তালেবানের বর্তমানে ক্ষমতাকে চ্যালেঞ্জ করে না। তবে ক্ষমতায় আসার পর এখানেই তালেবানরা উল্লেখযোগ্য বিরোধিতার মুখে পড়েছে। সম্প্রতি পানশিরের তালেবান নিয়ন্ত্রিত এলাকায় ন্যাশনাল রেসিজট্যান্স ফ্রন্ট (এনএফআর) গেরিলা আক্রমণ করছে। এ ছাড়া কিছু এলাকায় তারা শক্তিও বৃদ্ধি করছে। প্রসঙ্গত এনএফআর বিদ্রোহী গোষ্ঠীর প্রধান আহমেদ মাসুদ। তার বাবা ছিলেন তালেবানবিরোধী ঐতিহাসিক যোদ্ধা। কিন্তু গত বছর তালেবানরা ক্ষমতা নেওয়ার পর মাসুদ দেশ ছাড়েন। এনএফআর বাহিনীর সঙ্গে এখন সাবেক আফগান সরকারের কিছু সেনাও যোগ দিয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় সূত্র বিবিসিকে জানিয়েছে, ধর্মীয় ইস্যু কেন্দ্র করে সম্প্রতি সংঘর্ষ শুরু হয়। সূত্র জানায়, পানশিরের একজন শীর্ষ মৌলভি এ বছর ঈদুল ফিতরের উৎসব তালেবানদের ঘোষণার পর দিন পালন করার নির্দেশ দেন। তালেবানরা ওই মৌলভিকে গ্রেপ্তার করতে গেলে স্থানীয়দের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয়। সেখানে লোকজন নিহতও হয়- যদিও তালেবানরা তা অস্বীকার করেছে। খবরে বলা হয়, ওই সংঘর্ষে ঠিক কতজন নিহত হয়েছে তা নির্ধারণ করা সংবাদমাধ্যমের বেশ দুঃসাধ্য।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, আনুমানিক ১৫ জন নিরস্ত্র লোককে হত্যা করেছে তালেবানরা। প্রাথমিকভাবে পানশিরের আব্দুল্লাহ খেল এলাকায় শুরু হয়- তবে এখন সংঘর্ষের সমাপ্তি হয়েছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, ওই এলাকায় তালেবানরা অগ্রসর হওয়ায় শত শত বাসিন্দা এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন। এক গ্রামবাসী জানিয়েছেন, তাদের বয়স্ক স্বজন বাড়ির পেছনের দিকে অবস্থান করছিলেন কিন্তু তালেবান সদস্যরা তাকে গুলির নির্দেশ দেন। তিনি আরও জানান, তালেবানরা আরও একজনকে গুলি করে হত্যা করেন।

advertisement