advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভোটার মাত্র ৩২৯ জন

আমাদের সময় ডেস্ক
১৭ মে ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৭ মে ২০২২ ০১:১৩ এএম
advertisement

দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে পূর্ব আফ্রিকার দেশ সোমালিয়ার প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। দেশটির ভোটদান পদ্ধতি অন্যান্য দেশের তুলনায় ভিন্ন। গোটা দেশ থেকে মাত্র ৩২৯ জন ভোট দেন এই নির্বাচনে। ভোটগ্রহণও অনুষ্ঠিত হয় অত্যন্ত সুরক্ষিত একটি স্থানে। গতকাল রবিবার ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়।

advertisement

ব্যতিক্রমধর্মী এ নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় মূলত সোমালিয়ার নিরাপত্তাগত সমস্যা ও দেশটির গণতান্ত্রিক গ্রহণযোগ্যতার অনুপস্থিতি উঠে এসেছে। এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থী ৩৬ জন। এদের মধ্যে বিজয়ীকে লড়তে হবে দেশে বিরাজমান খরা পরিস্থিতির সঙ্গে। তার আরেকটি বড় কাজ হবে আল কায়েদার সঙ্গে যুক্ত উগ্র ইসলামপন্থি গোষ্ঠী আলশাবাবের প্রভাব খর্ব করা।

সোমালিয়ায় ‘এক ব্যক্তি এক ভোট’ ধরনের গণতান্ত্রিক নির্বাচন ১৯৬৯ সালের পর আর হয়নি। সেবারের ওই ভোটের পর অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে এসেছিল স্বৈরশাসন। দেখা দিয়েছিল গোষ্ঠীভিত্তিক মিলিশিয়া বাহিনী ও ইসলামি উগ্রবাদীদের মধ্যে সংঘর্ষ। এ অস্থিরতা সোমালিয়ায় প্রত্যক্ষ নির্বাচন আয়োজন করতে না পারার অন্যতম কারণ।

সোমালিয়া এবার তৃতীয়বারের মতো নিজ দেশের মাটিতে পরোক্ষভাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আয়োজন করেছে। এর আগের দুটি নির্বাচন প্রতিবেশী রাষ্ট্র কেনিয়া ও জিবুতিতে হয়েছিল। এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটার মূলত এমপিরা। তারা নিজেরা আবার নির্বাচিত হয়েছেন দেশের প্রভাবশালী গোষ্ঠীগুলোর মনোনীত প্রতিনিধিদের মাধ্যমে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটগ্রহণের স্থান নির্ধারিত হয়েছে সুরক্ষিত হালানে ক্যাম্প বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গার। ভোটগ্রহণ হওয়ার কথা গোপন ব্যালটে। কয়েক দফা ভোটের মধ্য দিয়ে একজন প্রার্থীকে বিজয়ী ঘোষণা করার কথা। প্রতি ধাপে বাদ পড়া প্রার্থীরা ‘কিং-মেকারের’ ভূমিকা পালন করতে পারেন। নিজ সমর্থকদের তার পছন্দের প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার অনুরোধ জানাতে পারেন।

advertisement