advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ডশিল্পী এখন টয়লেটের দায়িত্বে!

বিনোদন প্রতিবেদক
২৫ মে ২০২২ ০৭:২১ পিএম | আপডেট: ২৫ মে ২০২২ ০৭:৫৩ পিএম
ব্লু হরনেট ব্যান্ডের গায়ক মনসুর হাসান।
advertisement

নব্বই দশকের জনপ্রিয় ব্যান্ডদলগুলোর একটি ‘ব্লু হরনেট’। এই ব্যান্ডের ভোকাল মনসুর হাসান। মহসিন কলেজে এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষে পড়ার সময় ৬ বন্ধু মিলে গড়ে তুলেছিলেন ব্যান্ডটি। মনসুর হাসানের কণ্ঠে ‘বাটালি হিলের সেই বিকেল’, ‘ছোট্ট একটি মেয়ে’, ‘কত না বছর’সহ বেশ কিছু গান ওই সময় দারুণ জনপ্রিয় হয়।

তবে ভাগ্য এই ব্যান্ডের গায়ককে দাঁড় করিয়েছে চট্টগ্রাম মহানগরীর জামালখান মোড়ের গণশৌচাগারের তত্ত্বাবধায়ক। গান দিয়ে এক সময় মুগ্ধতা ছড়ানো শিল্পীর ঠিকানা আজ গণশৌচাগারের পাশে ছোট্ট একটি বেঞ্চ। নেই ঘরবাড়ি কিংবা সংসার। রোগ-শোকে আক্রান্ত এই গায়ক এখন মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, মাদকাসক্ত হয়ে পড়ালেখা, পরিবারের থেকে দূরে সড়ে যান মনসুর হাসান। এরপর জড়িয়ে যান রাজনীতিতে, গেছেন কারাগারেও। অবশেষে বাবা-মায়ের মৃত্যুর পর পাল্টে যায় তার জীবনের সব সুর-ছন্দ। সংসার হয়নি, খেয়ে না খেয়ে পথে-ঘাটে কেটেছে তার বহু দিন।

মনসুর হাসান বলেন, ভারত থেকেও অ্যালবাম বের করার প্রস্তাব পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নানা কারণে সেই অ্যালবামের কাজটি আর করা হয়নি তার। বছর কয়েক আগে মাত্র ৯ হাজার টাকা বেতনে গণশৌচাগার দেখভালের চাকরি নেন তিনি। থাকেন ফুটপাতের বেঞ্চে। বহুদিন কেটেছে এক বেলা খেয়ে। ৫৪ বছর বয়সী মনসুর এখন নানা রোগে আক্রান্ত।

‘ব্লু হরনেট’ ব্যান্ডের মনসুর হাসানের বর্তমান পরিস্থিতির বিষয়টি প্রথম প্রকাশ্যে আসে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমনের একটি ভিডিওতে। সেটি ভাইরাল হয় নেটদুনিয়ায়।

শৈবাল দাশ সুমন বলেন, ‘উনি আমাদের এখানে বেশ কয়েক বছর ধরে আছেন। কিন্তু আমরা প্রথমে তার পরিচয় জানতে পারিনি। যখন জানলাম, তখন তার কাছে ছুটে গেলাম। তার কথাগুলো নিয়ে একটি ভিডিও তৈরি করি। কেন তার আজকের এই অবস্থা! ভিডিওতে সে অতীত তুলে ধরি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি বলেছি, আমরা যদি আবার সেই প্ল্যাটফর্মে তাকে নিয়ে যাই তাহলে তিনি কি গান গাইতে প্রস্তুত? কিন্তু অনেক দিন গান-বাজনায় না থাকায় তার সুর হারিয়েছে গেছে বলে জানান। তবে আমরা চেষ্টা করছি, তিনি যাতে ভালোভাবে চলতে পারেন সেই ব্যবস্থা করার। তার অসুস্থতার জন্য চিকিৎসার ব্যবস্থাও করা হচ্ছে।’

১২ মিনিট ১৫ সেকেন্ডের সেই ভিডিওতে ওয়ার্ড কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, মনসুর হাসানের পাশাপাশি আরও ছিলেন খুটি ব্যান্ডের সাইফ ও সাসটেইন ব্যান্ডের রাইসুল।