advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভারতের রাষ্ট্রপতি হতে পারেন প্রথম আদিবাসী নারী

২৩ জুন ২০২২ ০৯:১৪ এএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২২ ০৯:১৪ এএম
advertisement

ভারতের বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের মেয়াদ শেষ হবে আগামী ২৫ জুলাই। ফলে বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশটির পরবর্তী রাষ্ট্রপতি কে হবেন, তা নিয়ে এখন ভারতজুড়ে চলছে আলোচনা। এরই মধ্যে ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ রাষ্ট্রপতি পদে তাদের প্রার্থী মনোনীত করেছে ঝাড়খ-ের সাবেক রাজ্যপাল আদিবাসী নেত্রী দ্রৌপদী মুর্মুকে। অন্যদিকে কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন বিরোধী জোটের মনোনয়ন পেয়েছেন দেশটির সাবেক পররাষ্ট্র ও অর্থমন্ত্রী যশবন্ত সিনহা। এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়া টুডের খবর বলছে, ভারতে আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে লড়বেন এ দুজনই। আর যেহেতু পার্লামেন্টে সংখ্যার হিসাবে এনডিএ বিরোধীদের থেকে বেশকিছুটা এগিয়ে আছে, সেহেতু রাষ্ট্রপতি পদে দ্রৌপদীরই জয়ের সম্ভাবনা বেশি। তেমনটি হলে এই প্রথম ভারতের রাষ্ট্রপতি পদে বসতে পারেন কোনো আদিবাসী নারী, যা হবে ভারতের আদিবাসী তথা নারীদের জন্য বিশাল এক অর্জন।
এনডিটিভি জানায়, গত মঙ্গলবার রাতে বিজেপির পার্লামেন্টারি বোর্ডের বৈঠকের পর দ্রৌপদী মুর্মুকে রাষ্ট্রপতি পদে মনোনয়নের ঘোষণা দেওয়া হয়। এর আগে বিজেপি সভাপতি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, জে পি নাড্ডারা
উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডুর সঙ্গে দেখা করেন। তখন গুজব রটতে থাকে বেঙ্কাইয়াকে রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী করতে পারে বিজেপি। কিন্তু রাতে দ্রৌপদী মুর্মুকে প্রার্থী করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আবার প্রমাণ করে দেন, তিনি কাকে প্রার্থী করবেন তার আঁচ কেউ আগে থেকে পান না। বিশ্লেষকরা বলছেন, দ্রৌপদী মুর্মু আদিবাসী নারী, খুবই গরিব পরিবার থেকে উঠে এসেছেন, এর সবই ঠিক। সেই সঙ্গে এটাও ঠিক তাকে প্রার্থী করে বিজেপি নেতা নবীন পট্টনায়েকের সমর্থন জোগাড় করে নিয়েছেন মোদি। দ্রৌপদী ওড়িশার মেয়ে। তাই নবীন তাকে সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বলে বিজেপি সূত্র জানাচ্ছে। সেই সঙ্গে তিনি ঝাড়খ-ের রাজ্যপাল ছিলেন। ফলে আরেক আদিবাসী নেতা এবং ঝাড়খ-ের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেনের সমর্থন পাওয়ার বিষয়ে বিজেপি নেতারা নিশ্চিত বলেই সূত্র জানাচ্ছে।
জানা গেছে, সাঁওতাল সম্প্রদায়ের দ্রৌপদী মুর্মুর জন্ম ওড়িশার ময়ূরভঞ্জ জেলার একটি গ্রামে। খুবই গরিব পরিবার থেকে তিনি লড়াই করে উঠে এসেছেন। প্রথমে বিজেপি নেত্রী ছিলেন। পরে ঝাড়খ-ের রাজ্যপাল হন। ২০২১ সাল পর্যন্ত তিনিই ঝাড়খ-ের প্রথম নারী রাজ্যপাল ছিলেন। তিনিই ওড়িশার প্রথম আদিবাসী নারী যিনি রাজ্যপাল হয়েছেন।
রাষ্ট্রপতি পদে ক্ষমতাসীনদের মনোনয়ন পাওয়ার পর গণমাধ্যমের কাছে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন দ্রৌপদী। তিনি বলেন, ‘আমি যেমন বিস্মিত, তেমনই আনন্দিত। প্রত্যন্ত ময়ূরভঞ্জ জেলার একজন আদিবাসী নারী হিসেবে আমি দেশের শীর্ষ পদের প্রার্থী হওয়ার কথা ভাবিওনি। আমি মাটির মেয়ে। একজন ওড়িয়া হিসেবে আমাকে সমর্থন করার জন্য সব সদস্যকে অনুরোধের অধিকার আমার আছে।’ মনোনয়ন দেওয়ার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী মোদিকে ধন্যবাদ জানান।

advertisement