advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চট্টগ্রামের ১৮ খালের পানি চলাচলে ২০ প্রতিবন্ধকতা
নিরসনে স্থায়ী উদ্যোগ নিন

২৪ জুন ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ২৩ জুন ২০২২ ১০:৩১ পিএম
advertisement

জলাবদ্ধতা এখন আমাদের অন্যতম সমস্যা। মানুষের জীবনে দুর্ভোগের অন্ত থাকে না বর্ষা মৌসুমে। বিশেষ করে রাজধানীর ঢাকা যেমন, তেমনি বন্দরনগরী চট্টগ্রামসহ সারাদেশের শহরাঞ্চল পানিতে থইথই করে। বৃষ্টির পানি সময়মতো নিষ্কাশনের সুযোগ নেই।

advertisement

গতকাল আমাদের সময়ের এক প্রতিবেদনে জানা গেছে, টানা তিন দিনের বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম নগরীর অধিকাংশ এলাকা ছিল পানির নিচে। বৃষ্টির পানি সরতে না পারার কারণ শনাক্ত করা হয়েছে। ১৮টি খালের মধ্যে পানি চলাচলে ২০ প্রতিবন্ধকতা শনাক্ত করেছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)। বিশেষ করে নগরীর পতেঙ্গায় নির্মাণাধীন কর্ণফুলী টানেলের মুখে ৬০ ফুটের একটি খালকে ৩ ফুটের নালায় পরিণত করা ও নির্মাণাধীন এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে নিয়োজিত ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান ম্যাক্স গ্রুপের ৪১ নম্বর খালটি মাটি দিয়ে ভরাট করে ফেলা। এতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। খালের বাঁধ অপসারণ করা হয়েছে। তবুও কেন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে, জনগণ ভোগান্তিতে পড়ছে? বিভিন্ন মহল থেকে শহরটির উন্নয়ন ও নগরীর সেবা খাতে যুক্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকা-ের সমন্বয় সাধনের কথা বলা হচ্ছে বহুকাল ধরে। কিন্তু সেদিকে কেউই কর্ণপাত করছেন না। এমনকি বিভিন্ন সময় এসব সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে নগর সরকার গঠনের প্রস্তাব নিয়েও আলোচনা হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত কাজের কাজ কিছুই হয় না।

এদিকে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের তদারকি থাকা সত্ত্বেও নগরায়ণ পরিকল্পিতভাবে হচ্ছে না, যত্রতত্র বাড়ি উঠছে, অনুমোদিত নকশা বদলানো হচ্ছে, অবৈধভাবে ভবনের উচ্চতা বৃদ্ধি করা হচ্ছে, আইন অনুযায়ী জমি ছাড়া হচ্ছে না। এভাবে নগরী ঘিঞ্জি ও ঘনবসতিপূর্ণ কংক্রিটের বস্তিতে পরিণত হচ্ছে। এতে যেমন তরলসহ সব রকমের বর্জ্য বাড়ছে, তেমনি প্রাকৃতিক ড্রেনেজব্যবস্থার ওপরও চাপ বাড়ছে। ফলে পরিকল্পিত নগরায়ণের অভাবে কেবল যে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে, তা নয়; নদীদূষণ ব্যাপকভাবে বাড়ছে। কারণ উন্নয়ন ও দুর্নীতি এমনই গাঁটছড়া বেঁধেছে যে, দুর্নীতির ফাঁস ছাড়িয়ে উন্নতির কাজ হওয়া বেশ কঠিন। নয়তো এতদিনে এত বরাদ্দ সত্ত্বেও পরিস্থিতি দিন দিন খারাপ হচ্ছে কেন? এ ছাড়া অপরিকল্পিতভাবে শহরের খাল, নালা-নর্দমা ভরাট করে বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট নির্মাণের মতো অবিবেচক কারণ যেমন রয়েছে, তেমনিভাবে যেসব নালা-নর্দমা ও খানা-খন্দ রয়েছে। এগুলোর প্রয়োজনীয় সংস্কার না হওয়াতেও জলাবদ্ধতা তৈরি হচ্ছে। তাই জলাবদ্ধতা দূরীকরণে স্থায়ী উদ্যোগ নিতে হবে। বাজেটে যে বরাদ্দ থাকে, তা সঠিক ও পরিকল্পিত উপায়ে কাজে লাগাতে হবে। তা হলেই জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি মিলবে।

advertisement