advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আশ্রয়কেন্দ্রে দুধের জন্য কাঁদছে সেই নবজাতক

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি
২৪ জুন ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৩ জুন ২০২২ ১১:৩৬ পিএম
advertisement

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর পৌর এলাকার বাসস্ট্যান্ড কলোনিতে গত ১৬ জুন সন্তানের জন্ম দেন তানিয়া বেগম। ওই রাতেই তাদের ঘরে ওঠে বন্যার পানি। উপায় না পেয়ে পরদিন সকালেই নবজাতককে নিয়ে তানিয়া উপজেলা সদরের আবদুস সামাদ আজাদ অডিটরিয়ামের আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠেন। পাঁচ শতাধিক বন্যাকবলিত মানুষের সঙ্গে নবজাতককে নিয়ে তানিয়া থাকছেন ওই আশ্রয়কেন্দ্রে। তবে ঠিকমতো বুকের দুধ না পাওয়ায় নবজাতককে নিয়ে বিপাকে পড়েছেন তিনি। হাতে টাকা-পয়সা নেই বলে দুধ কিনে খাওয়ানোর মতো সামর্থ্যও নেই তাদের।

advertisement

খুব ছোটবেলায় তানিয়া মা-বাবার সঙ্গে জগন্নাথপুর আসেন। তবে তাদের বাড়ি নেত্রকোনার আটপাড়া উপজেলার মঙ্গলসিট কাঁচাবাজার এলাকায়। জগন্নাথপুরে আসার পর তার বাবা হাফিজ উল্যাহ পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আবদুল কাইয়ুমের কলোনিতে ভাড়া বাসায় থাকতেন। গত বছরের মার্চ মাসে একই কলোনিতে বসবাসকারী দিনমজুর ইলিয়াস মিয়ার (৪০) সঙ্গে তানিয়ার বিয়ে হয়। গতকাল আশ্রয়কেন্দ্রে

গিয়ে দেখা যায়, শিশুটি মায়ের কোলে বসে কাঁদছিল। এক ফাঁকে তানিয়া বেগম বলেন, অধিকাংশ সময় আমার ছেলেটা বুকের দুধ পাচ্ছে না। তাই সব সময়ই কাঁদছে।

তানিয়ার ননদ দুলন বিবি বলেন, আমরা খুব কষ্টে আছি। একবার সামান্য চাল ও দুই বেলা শুকনা খিচুড়ি ছাড়া কিছু পাইনি। টাকার অভাবে বাচ্চাটাকে দুধ কিনে এনে খাওয়ানো যাচ্ছে না। এখন পর্যন্ত মা ও ছেলে কোনো ধরনের ওষুধ বা চিকিৎসাও পায়নি।

এ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মধুসূদন ধর বলেন, হাসপাতালে নিয়ে এলে নবজাতক ও তার মায়ের সুচিকিৎসা ও প্রয়োজনীয় সহায়তা নিশ্চিত করা যাবে।

advertisement