advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

তহবিল সংগ্রহ ত্রাণ বিতরণে ব্যস্ত বিএনপি

নজরুল ইসলাম
২৪ জুন ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৪ জুন ২০২২ ০৯:৫৪ এএম
advertisement

সিলেট অঞ্চলের বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে বিএনপি। সাংগঠনিক কার্যক্রম কমিয়ে মনোযোগ দিয়েছে তহবিল সংগ্রহ ও ত্রাণ বিতরণে। বন্যা পরিস্থিতি উন্নত না হওয়া পর্যন্ত এ নিয়ে ব্যস্ত থাকবে দলটি।

ত্রাণ কার্যক্রম আরও গতিশীল করতে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে একটি লিখিত বার্তা দেওয়া হয়েছে। এতে সহানুভূতিশীল ব্যক্তিবর্গের কাছ থেকে সাহায্য/অনুদান (অর্থ ও খাদ্যসামগ্রী) সংগ্রহ করে দলের কেন্দ্রীয় ত্রাণ কমিটির কাছে জমা দিতে অনুরোধ করা হয়েছে। দলীয় সূত্রে জানা যায়, এই বার্তা দেওয়ার পর ত্রাণসামগ্রী পৌঁছে দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নেতারা।

advertisement

গতকাল বৃহস্পতিবার দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সিলেট বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন। যুবদলের সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু আমাদের সময়কে বলেন, চাল, ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় ১২টি পণ্যের সমন্বয়ে একটি ত্রাণ ব্যাগ প্রস্তুত করা হয়েছে। শুক্রবার (আজ) দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে এই ত্রাণ দেওয়া হবে। ত্রাণ বিতরণে অংশ নেবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল হক বলেন, আমাদের ত্রাণ তহবিলে ১৭ লাখ টাকা জমা পড়েছে। এই নিয়ে আমরা শনিবার নেত্রকোনায় বন্যা দুর্গতদের পাশে দাঁড়াব। আগামী রবিবার সিলেট যাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবক দল। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল জানান, সিলেটের বিভিন্ন স্থানে দেড় হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হবে। ত্রাণ বিতরণে অংশ নেবেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বরচন্দ্র রায়।

সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাখাওয়াত হাসান জীবন বলেন, বন্যা শুরু থেকে স্থানীয় নেতাকর্মীরা নিজেদের মতো করে উদ্ধার তৎপরতা পরিচালনা করছেন। এখন বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে, দুর্গম এলাকায় রান্না করা খাবার পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মিলন জানান, ত্রাণ তৎপরতায় অংশ নিয়ে অনেক নেতাকর্মী অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। কিন্তু ত্রাণ কার্যক্রম থেমে নেই।

বিএনপি সমর্থিত পেশাজীবী সংগঠন ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)-এর চিকিৎসকরাও চিকিৎসাসেবা নিয়ে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি ডা. হারুন আল রশীদ। ওষুধ, খাবার স্যালাইন থেকে শুরু করে চিকিৎসা দিতে মিনি ক্যাম্প খোলা হচ্ছে।

স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা জানান, বন্যার শুরু থেকেই বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন পাওয়া নেতাদের পাশাপাশি স্থানীয় নেতাকর্মীরাও ত্রাণ তৎপরতায় অংশ নিয়েছেন। তারা আরও জানান, নেতারা দুর্গত এলাকায় নৌকা ভাড়া করে উদ্ধার কাজের পাশাপাশি শুকনো ও রান্না করা খাবার আশ্রয়কেন্দ্রে পৌঁছে দিচ্ছেন। এ কাজে প্রায় একশ নৌকা কাজ করছে। দলীয় ও নেতাদের ব্যক্তি উদ্যোগে এ ত্রাণ তৎপরতা চলছে। ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতাকর্মীরা নিজ উদ্যোগে নৌকা ভাড়া করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে ত্রাণ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দলের দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে সম্প্রতি বিএনপির ত্রাণবিষয়ক জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, এবারের বন্যা পরিস্থিতিকে আমরা তিনভাবে ভাগ করেছি। এখন যারা পানিবন্দি মানুষজন আছেন তাদের উদ্ধার করে তাদের কাছে খাবার পৌঁছে দেওয়া। বন্যার পানি চলে গেলে মানুষজনের ঘর বানানো, তাদের খাবার-দাওয়া ও ওষুধপত্র বিতরণ করা হবে। কৃষকরা যেন চাষাবাদ করতে পারেন সেজন্য বীজতলা তৈরি করে তাদের সরবরাহ করা হবে। ড্যাব ও জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন চিকিৎসাসেবা ও ওষুধ বিতরণ, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করবে।

 

advertisement