advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় নেই দেশের ভোজ্যতেলের দাম

তৈয়ব সুমন, চট্টগ্রাম
৬ আগস্ট ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ৬ আগস্ট ২০২২ ১২:৩৪ এএম
advertisement

বিশ্ববাজারে অব্যাহতভাবে কমছে ভোজ্যতেলের দাম। দেশেও কমছে পণ্যটির দাম। কিন্তু যে হারে বিশ্ববাজারে কমছে সেটার সঙ্গে সমন্বয় নেই দেশের তেলের দামের। ব্যবসায়ীয়রা বলছেন, ডলারের বাড়তি দামের কারণে ভোজ্যতেলের দাম বিশ্ববাজারের সঙ্গে সমন্বয় করা যাচ্ছে না। এর পরও দেশে তেলের দাম কমছে। দেশে ডলারের দাম কমলে তেলের দাম আরও কমবে। ভোক্তাদের প্রতিনিধিরা বলছেন, বিশ্ববাজারের অজুহাত দিয়ে দেশের ব্যবসায়ীরা দফায় দফায় পণ্যটির দাম বাড়িয়েছিল। তাহলে একই হারে কেন কমাতে পারবে না? বিষয়টি প্রশাসনের তদারকি করা দরকার। তাহলে আসল রহস্য বের হয়ে আসবে।

advertisement

গত ২৮ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের কমোডিটি এক্সচেঞ্জ শিকাগো বোর্ড অব ট্রেডের দেওয়া তথ্যমতে, সয়াবিন তেলের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল প্রতিটন ১৪৫১ ডলার। গত বুধবার এ দর নেমে আসে টনপ্রতি ১৪৩৪ ডলারে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে টনে কমেছে ১৭ ডলার। আর পাম তেল উঠেছিল প্রতিটন ৮৮৮ ডলার। সেটি এখন ৮৬৬ ডলারে নেমে এসেছে।

এক টনে ২৬.৭৯ মণ হিসেবে প্রতিমণ সয়াবিন তেলের দাম ৫৩.৫২ ডলার। প্রতি ডলার ১০৯ টাকা হিসেবে প্রতিমণ সয়াবিন তেলের দাম দেশে পড়ার কথা ৫৮৩৪ টাকা। এর সঙ্গে শ্রমিক ও আমদানি খরচ ৫০ টাকা যোগ করলে পড়ে ৫৮৮৪ টাকা। প্রতিমণে ৩৭.৩২ লিটার হিসেবে প্রতি লিটারের দাম পড়ার কথা ১৫৭.৬৬ টাকা।

কিন্তু গত বৃহস্পতিবার দেশের বৃহত্তর পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে প্রতিমণ সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ৬২০০ টাকা। সে হিসাবে প্রতি লিটারের দাম পড়ছে ১৬৬.১৩ টাকা। প্রতি লিটারে বিশ্ববাজার থেকে সাড়ে ৮ টাকা বেশি দামে বিক্রি করছেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। একইভাবে পাম তেল বিশ্ববাজারে পড়ছে ১০১.৪১ টাকা। আর খাতুনগঞ্জের পাইকারি বাজারে বিক্রি হচ্ছে ১১২.৫ টাকা। বিশ্ববাজারের সঙ্গে দেশের ব্যবধান ১১ টাকা।

চট্টগ্রামের বহদ্দারহাট খুচরা বাজারে বোতলজাত রূপচান্দা সয়াবিল তেল বিক্রি হচ্ছে ৫ লিটার ৯১০ টাকা। একই কোম্পানির ১ লিটার বোতল ১৯০ টাকা। আগে ছিল ২০৫ টাকা। বসুন্ধরা বিক্রি হচ্ছে ৯০০ টাকা। অন্যান্য কোম্পানির ৫ লিটার তেল ৫ টাকা এদিক সেদিক করে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। আর খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৭০ টাকা। আগে ছিল ১৮৫ টাকা। খোলা পাম তেল ১২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বন্দরের তথ্যমতে, ২০২১ সালে দেশে ভোজ্যতেল আমদানি হয় ২১ লাখ ১২ হাজার টন। ২০২২ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত চার মাসে দেশে তেল আমদানি হয় ১৩ লাখ ৬৯ হাজার টন। এর মধ্যে বসুন্ধরা গ্রুপ সোয়া ৩ কোটি লিটার সয়াবিন তেল বাজারজাত করে। এর পর সিটি গ্রুপ ১ কোটি ৪৩ লাখ লিটার, মেঘনা গ্রুপ ১ কোটি ৩০ লাখ লিটার, বাংলাদেশ এডিবল অয়েল ৮৮ লাখ লিটার ও সেনা কল্যাণ এডিবল অয়েল ৫৪ লাখ লিটার ভোজ্যতেল পরিশোধন করে বাজারজাত করে।

ভোজ্যতেল বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশের তেল আমদানি করে কয়েকটি গ্রুপ। তারাই মূলত দেশের তেলের বাজার নিয়ন্ত্রণ করে। এসব গ্রুপ বোতলজাত করে তেল বাজারজাত করে থাকে।

ভোজ্যতেল বিপণনকারী কোম্পানি এস আলম গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) মো. সালাহউদ্দিন বলেন, বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দাম ক্রমাগত কমছে। কিন্তু দেশে ডলারের দামের চিত্র উল্টো। প্রতিদিনই দেশে ডলারের দাম বাড়ছে। এখন ১০৯ টাকা ছাড়িয়ে গেছে ডলারের দাম। মূলত ডলারের বাড়তি দামের কারণে আমরা তেলের দাম বিশ্ববাজারের সঙ্গে সমন্বয় করতে পারছি না। আশা করছি, ডলারের দাম কমে আসবে। তখন ভোজ্যতেলের দাম আরও কমবে।

চাক্তাই খাতুনগঞ্জ আড়তদার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি সোলায়মান বাদশা আমাদের সময়কে বলেন, বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমা অব্যাহত রয়েছে। উৎপাদন বৃদ্ধি, রপ্তানিকারক দেশগুলোতে মজুদ বেড়ে যাওয়ায় এমন দরপতন হচ্ছে। দেশের বাজারেও আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমার প্রভাব কিছুটা পড়েছে। তবে যে হারে তেলের দাম কমার কথা সে তুলনায় দেশের বাজারে কমছে না। তিনি বলেন, সরকার যদি ডলারের দাম কমানোর পদক্ষেপ নেয় তাহলে শুধু ভোজ্যতেল নয়, দেশে ভোগ্যপণ্যের দাম কমে আসবে। কারণ আমাদের দেশে অধিকাংশই ভোগ্যপণ্য বাইর থেকে আমদানি করতে হয়।

কনজিউমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি এসএম নাজের হোসাইন আমাদের সময়কে বলেন, বিশ্ববাজারে তেলের দাম যখন বাড়ছিল তখন দেশের ব্যবসায়ীরা দফায় দফায় দাম বাড়ায়। আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে দেশীয় বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বাড়াতে দেরি করেন না আমদানিকারকরা। এখন যখন বিশ্ববাজারের পণ্যটির দাম ক্রমাগত কমছে, তখন তারা আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করে কমাচ্ছে না। এদিকে দাম সমন্বয়ের বিলম্বের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ভোক্তারা। যার কারণে বড় অঙ্কের মুনাফা করছেন আড়তদার ও আমদানিকারকরা। বিষয়টি প্রশাসনের তদারকি করা প্রয়োজন।

advertisement