advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

২০ রুপির জন্য ২২ বছর আইনি লড়াই

অনলাইন ডেস্ক
১২ আগস্ট ২০২২ ০৯:৩৮ এএম | আপডেট: ১২ আগস্ট ২০২২ ১১:১১ এএম
মামলার বাদী তুঙ্গনাথ চতুর্বেদী। ছবি: সংগৃহীত
advertisement

রেলের টিকেটের দাম ২০ রুপি অতিরিক্ত নিয়েছিল বুকিং কাউন্টারের কর্মী। এর বিরুদ্ধে ১৯৯৯ সালে মামলা করেছিলেন আইনজীবী তুঙ্গনাথ চতুর্বেদী। ২২ বছর পর সেই মামলায় জিতেছেন তিনি। ক্ষতিপূরণ হিসেবে তাকে ৩০ দিনের মধ্যে ১৫ হাজার টাকা দিতে বলেছেন আদালত।

বিবিসি জানিয়েছে, ১৯৯৯ সালে উত্তর প্রদেশ রাজ্যের মথুরা সেনানিবাস রেলওয়ে স্টেশনে থেকে দুটি টিকেট কেনেন ৭০ রুপি দিয়ে। তিনি ১০০ রুপির নোট দিলে বুকিং কাউন্টার থেকে ১০ রুপি ফেরত দেওয়া হয়। পরে আরও ২০ রুপি ফেরত চেয়েও তিনি পাননি। এ ঘটনায় মামলা করেছিলেন তুঙ্গনাথ। গত সপ্তাহে ভোক্তা আদালত তুঙ্গনাথের পক্ষে রায় দিয়েছেন। রায়ে রেলওয়েকে সুদসহ অর্থ ফেরত দিতে বলা হয়।

advertisement 3

তুঙ্গনাথ বলেন, ‘আমি এই মামলার বিষয়ে শতাধিক শুনানিতে অংশ নিয়েছি। কিন্তু এই মামলার লড়াইয়ে আমি যে শক্তি ও সময় হারিয়েছি তার জন্য আপনি মূল্য দিতে পারবেন না। এখানে টাকা গুরুত্বপূর্ণ নয়। এটি ন্যায়বিচারের জন্য দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই।’

advertisement 4

ভারতীয় ভোক্তা আদালত পরিষেবা সম্পর্কিত অভিযোগগুলো নিয়ে কাজ করে। কিন্তু অতিরিক্ত মামলার কারণে এই আদালতে সাধারণ মামলার রায় দিতেও কয়েক বছর লেগে যায়।

তুঙ্গনাথ বলেন, ‘রেলওয়ে মামলাটি খারিজ করার চেষ্টা করেছিল। তারা বলেছে রেলওয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো রেলওয়ে ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তি করা উচিত, ভোক্তা আদালতে নয়। কিন্তু আমরা ২০২১ সালের সুপ্রিম কোর্টের একটি রায় ব্যবহার করে প্রমাণ করেছি যে বিষয়টি একটি ভোক্তা আদালতে শুনানি হতে পারে।’

আদালত ১৯৯৯ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর ১২ শতাংশ সুদে টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দেন রেলওয়েকে। এজন্য রেলওয়েকে ১৫ হাজার জরিমানা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। রায়ে আরও বলা হয় ৩০ দিনের মধ্যে জরিমানার অর্থ প্রদান না করলে সুদের হার ১৫ শতাংশ বাড়ানো হবে।

advertisement