advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

শোকাবহ ১৫ আগস্ট
বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে

১৫ আগস্ট ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ১৫ আগস্ট ২০২২ ১২:৩৫ এএম
advertisement

আজ ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। বাঙালির জীবনে সবচেয়ে মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক দিন এটি। ১৯৭৫ সালের এই দিনে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করে যারা নবীন রাষ্ট্রটির অগ্রযাত্রা থামিয়ে দিতে চেয়েছিল, তারা নিক্ষিপ্ত হয়েছে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে।

advertisement

সেদিন ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি- তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেলসহ পুত্রবধূ সুলতানা কামাল এবং রোজি জামাল। পৃথিবীর এই জঘন্যতম হত্যাকা- থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও সুকান্তবাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মণি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন। কিন্তু ওই সময় দেশে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহানা। এই দিনে সবার স্মৃতির প্রতি আমরা শ্রদ্ধা জানাই এবং সবার আত্মার শান্তি কামনা করি।

advertisement 4

নিছক আনুষ্ঠানিকতা নয়, যে মহান নেতা দীর্ঘ সংগ্রাম করে বাংলাদেশ নামের একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করে গেছেন- তার চিন্তা, কর্ম, ত্যাগ এবং সংগ্রামের চেতনা যদি আমরা হৃদয়ে ধারণ করি; তা হলে সেটিই হবে সত্যিকার শ্রদ্ধা নিবেদন। আমরা মনে করি, তাকে শ্রদ্ধা জানানোর শ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে- যে সুখী, সমৃদ্ধ, গণতান্ত্রিক ও শোষণমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন তিনি দেখেছিলেন; এর বাস্তব রূপ দেওয়া। গণতন্ত্র, সামাজিক ন্যায় ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়েই ওই কাজটি করা সম্ভব।

বলার অপেক্ষা রাখে না, বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর অনন্য ও সাহসী ভূমিকা অস্বীকার করা বাংলাদেশকে অস্বীকার করারই শামিল। তাই বাংলাদেশ রাষ্ট্রের এই মহান স্থপতিকে আমাদের স্মরণ করতে হবে জাতীয়ভাবে, সব সংকীর্ণতা ও দলীয় গ-ির বাইরে গিয়ে। বঙ্গবন্ধু কোনো দলের নন, পুরো জাতির।

advertisement