advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ডলারের বাজারে ফের অস্থিরতা
পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:৪৮ এএম
advertisement

রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে পুরো বিশ্বে ডলার সংকট বাড়ছে। এ সংকট কোনোভাবেই কাটছে না। দেশে ৫ মাসের বেশি সময় ধরে বৈদেশিক মুদ্রাবাজারে অস্থিরতা বিরাজ করছে। গতকাল আমাদের সময়ের এক প্রতিবেদনে জানা যায়, টানা দুই কার্যদিবস ১ টাকা ৪০ পয়সা কমার পর গত মঙ্গলবার আড়াই টাকা বেড়ে ডলারের দাম উঠেছে ১০৮ টাকায়। খোলাবাজারে দাম আরও চড়া। মঙ্গলবার এই বাজারেও প্রায় ১ টাকা বেড়ে ১১৫ টাকায় উঠেছে। দাম নিয়ন্ত্রণে প্রায় প্রতিদিনই রিজার্ভ থেকে ডলার বিক্রি করছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তার পরও ডলারের দাম নিয়ন্ত্রণে আসছে না। ডলারের দাম বাড়ায় আমদানি বিল নিষ্পত্তিতে ব্যবসায়ীদের খরচ আরও বেড়েছে। গত কয়েকদিনে দেশের মানিচেঞ্জার ও খোলাবাজারে ডলারের দাম রেকর্ড পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকার নানা ব্যবস্থার মাধ্যমে সংকট উত্তরণের প্রয়াস চালাচ্ছে। অর্থনীতিবিদরা মনে করছেন, এ সংকট দুই-তিন বছর পর্যন্তও স্থায়ী হতে পারে। তবুও আমদানি ব্যয় পরিশোধের সময় ঘনিয়ে আসার ফলে মজুদ ডলারের ওপর চাপ বাড়বে। আবার বিদ্যমান পরিস্থিতিতে রপ্তানি খাতে কার্যাদেশ আশঙ্কাজনক হারে হ্রাস পেয়েছে। কেউ কেউ মনে করছেন, অর্থনৈতিক চাপ কমাতে সরকারের গৃহীত উদ্যোগগুলো অপর্যাপ্ত ও স্বল্পমেয়াদি। সরকারকে সামষ্টিক অর্থনীতি স্থিতিশীল রাখতে মধ্যমেয়াদি উদ্যোগ নিতে হবে। বর্তমান সংকট ও ভবিষ্যতের অর্থনৈতিক সম্ভাব্য বিপদ সম্পর্কে সরকারের ঊর্ধ্বতন মহল সচেতন রয়েছে। বর্তমান কঠিন সময়ে ব্যয় সংকোচন ও উপযুক্ত নীতি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক দুঃসময় কাটাতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্য কেনাবেচা কমে গেলে এর প্রভাব পণ্যের দামেও পড়বে। অর্থাৎ মূল্য কমতে শুরু করবে। এখন খেয়াল রাখতে হবে, সম্ভাব্য এ রকম পরিস্থিতিতে ভবিষ্যতে অতিরিক্ত মুনাফার লোভে ব্যাংকসহ কোনো অংশীজন এই সময়ে বড় অঙ্কের ডলার মজুদ করছে কিনা। পাচার কিংবা মজুদের কারণে ডলারের দাম বৃদ্ধির ক্ষেত্রে রাশ টানা যাবে না। ফলে আমদানি-রপ্তানিসহ সামগ্রিক ব্যাংকিং খাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের তদারকি বৃদ্ধি করতে হবে। কেউ যাতে পরিস্থিতির সুযোগ কাজে লাগিয়ে অস্বাভাবিক লেনদেন ও অতিরিক্ত মুনাফার পথে যেতে না পারে, সেটি নিশ্চিত করা দরকার। এই কঠিন সময় মোকাবিলায় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করতে হবে।

advertisement 3
advertisement