advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ইউক্রেনে যুদ্ধ কী আরও তীব্র হবে?

২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৭:৪২ পিএম
আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৭:৪২ পিএম
রুশ বাহিনীর হামলায় বিধ্বস্ত ভবন
advertisement

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গতকাল বুধবার বলেছেন, তিনি কোনো ফাঁকা বুলি আওড়াচ্ছেন না, কিন্তু ভৌগোলিক অখণ্ডতা রক্ষার জন্য তার দেশ সম্ভাব্য সব উপায় ব্যবহার করবে।

দেশটি ইউক্রেন যুদ্ধের জন্য তিন লাখ রিজার্ভ সেনা সমাবেশ করার ঘোষণা দিয়েছে। অনেকে বলছেন, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর রাশিয়া প্রথমবারের মতো এ ধরণের পদক্ষেপ নিল। এর ফলে ইউক্রেনে যুদ্ধের তীব্রতা আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

advertisement 3

এদিকে পশ্চিমা দেশগুলো ইউক্রেনকে আরও ৫ হাজার কোটি ডলারের অস্ত্র সহায়তা দিচ্ছে। এর মধ্যে কিছু অস্ত্র ইউক্রেনের কাছে এসেছে এবং আরো অস্ত্র আসবে।

advertisement 4

সমর বিশেষজ্ঞ এবং মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরের মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সৈয়দ মাহমুদ আলী বিবিসিকে বলেন, সব অস্ত্র যদি ইউক্রেনের হাতে আসে তাহলে যুদ্ধের মোড় ঘুরে যেতে পারে। এজন্য রিজার্ভ সৈন্য সমাবেশ করে আগে থেকেই রাশিয়া প্রস্তুতি নিচ্ছে।

ইউক্রেনের রাশিয়া যেসব অঞ্চল দখল করেছে তার বেশিরভাগ এখনো তাদের নিয়ন্ত্রণেই আছে। এর মধ্যে চারটি অঞ্চলে গণভোটের আয়োজন করেছে রাশিয়া। 

ইস্তাম্বুল-ভিত্তিক সমর বিশেষজ্ঞ মুরাত আসলান বিবিসিকে বলেন, গণভোটের মাধ্যমে ইউক্রেনের সেসব অঞ্চলকে রাশিয়া তাদের অংশ করে নেবে। যেমনটা ২০১৪ সালে ক্রিমিয়ার ক্ষেত্রে হয়েছিল।

গণভোটের পর রাশিয়া সেসব অঞ্চলকে তারা রাশিয়ার অংশ হিসেবে বিবেচনা করবে। রাশিয়া সেসব অঞ্চল ধরে রাখতে চাইবে এবং সেখানে শক্তি বাড়াবে। এজন্য পুতিন মাতৃভূমি রক্ষার কথা বলছেন বলে উল্লেখ করেন মুরাত।

সমর বিশেষজ্ঞ সৈয়দ মাহমুদ আলীর ভাষ্য হচ্ছে, ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার লক্ষ্য ছিল তিনটি। ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের রুশ ভাষাভাষী অধ্যুষিত দোনেৎস্ক এবং লুহানস্ক এলাকায় রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে সেখানে রুশ-ভাষী জনগণকে সুরক্ষা দেয়া। ইউক্রেনে ডি-নাজিফিকেশন বা উগ্র-জাতীয়তাবাদ নির্মূল করা। যেটি মারিউপোল এলাকায় সক্ষম হয়েছে রাশিয়া। তৃতীয়টি হচ্ছে, ইউক্রেনকে বেসামরিকীকরণ করা।

আলী মনে করেন, ইউক্রেনকে বেসামরিকীকরণ করার লক্ষ্যে রাশিয়া পৌঁছাতে পারবে বলে মনে হচ্ছে না। রাশিয়ার সৈন্য সংখ্যা ইউক্রেনের চেয়ে অনেক বেশি। কিন্তু যুদ্ধক্ষেত্রে ইউক্রেনের কৌশল এবং পশ্চিমাদের সরবরাহ করা অত্যাধুনিক অস্ত্র দু'পক্ষের মধ্যে ব্যবধান কমিয়ে এনেছে।

সমরবিদরা বলছেন, ইউক্রেন যুদ্ধে দুটো টার্নিং পয়েন্ট আছে। প্রথমটি হচ্ছে, কিয়েভের আশপাশ থেকে রাশিয়া যখন সৈন্য সরিয়ে নিয়েছিল। দ্বিতীয় টার্নিং পয়েন্ট হচ্ছে, দুপ্তাহ আগে রাশিয়ার কাছ থেকে ইউক্রেন যখন পুনরায় কিছু ভূমি দখল করে নেয়।

ইস্তাম্বুল-ভিত্তিক সমরবিদ মুরাত আসলান বিবিসিকে আরও বলেন, চারটি অঞ্চলে গণভোট করে সেগুলো রাশিয়া নিয়ন্ত্রণে নেবার পর পুতিন হয়তো যুদ্ধবিরতি করতে পারেন। কিন্তু ইউক্রেন সেটি কিছুতেই মানবে না। তারা সেসব অঞ্চল থেকে রাশিয়ার সৈন্যদের বিতাড়িত করার লড়াই করবে।

তখন যদি ইউক্রেন আরো সাফল্য লাভ করে, তাহলে প্রেসিডেন্ট পুতিন দেশের ভেতরে বড় ধরণের চাপে পড়বেন। সেক্ষেত্রে লড়াই আরও তীব্র হতে পারে, বলেন মুরাত আসলান। সমরবিদদের অনেকে বলছেন, ইউক্রেনে রাশিয়া তাদের সমরশক্তি ব্যাপকভাবে ব্যবহার করেনি।

অধ্যাপক মাহমুদ আলী বলছেন, রাশিয়া তাদের বিমান ও নৌবাহিনীর অতিক্ষুদ্র অংশ ব্যবহার করেছে। কারণ তারা ইউক্রেনকে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে চায়নি। একই সঙ্গে ইউক্রেন যেভাবে পাল্টা যুদ্ধ করছে সেটিও রাশিয়া অনুমান করতে পারেনি বলে মনে করেন অধ্যাপক আলী।

তাছাড়া পশ্চিমা দেশগুলো থেকে এতোটা অস্ত্র সাহায্য আসবে সেটি রাশিয়া ভাবতে পারেনি। যুদ্ধ শুরুর পর রাশিয়া দেখেছে যে কিছু পশ্চিমা রাষ্ট্র ইউক্রেনকে ব্যবহার করে রাশিয়ার বিরুদ্ধে অনেকটা সরাসরি যুদ্ধে নেমে গেছে। ফলে দেশকে রক্ষা করতে হলে রাশিয়াকেও আরও প্রস্তুতি নিতে হবে।

অধ্যাপক আলী বলেন, আসন্ন শীতকালে ইউরোপে জ্বালানি এবং অর্থনৈতিক সংকট দেখা দিতে পারে। ফলে ইউরোপ এবং আমেরিকার রাজনৈতিক পরিস্থিতি কোন দিকে যাবে সেটি নিয়েও রাশিয়া চিন্তা করছে।

advertisement