advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

‘জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রস্তাব বিশ্বব্যাপী নারীর ক্ষমতায়নে নব দিগন্ত সূচনা করবে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৯:৪১ পিএম | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৯:৪১ পিএম
স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতিসমূহের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। ছবি: আমাদের সময়
advertisement

জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রস্তাব বিশ্বব্যাপী নারীর ক্ষমতায়নে নব দিগন্ত সূচনা করবে বলে মন্তব্য করেন প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকায় জাতীয় মহিলা সংস্থায় বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা অডিটোরিয়ামে নিবন্ধিত স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতিসমূহের মধ্যে অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘সরকার নারীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আর্থিক উন্নয়নে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। একইসঙ্গে নারীর নিরাপত্তা, সুরক্ষা ও আইনি সহায়তা প্রদানে বিভিন্ন পদক্ষেপ চলমান রয়েছে। জাতিসংঘ প্ল্যাটফর্ম অব উইমেন লিডারস সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাপী নারী নেতৃত্বকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে তিন দফা প্রস্তাব করেছেন। তিনি ২০৩০ সালের মধ্যে প্রতিটি সেক্টরে নারীর অংশগ্রহণ ৫০ শতাংশ নিশ্চিত করার অঙ্গীকার করেছেন। এ অঙ্গীকার বিশ্বব্যাপী নারীর ক্ষমতায়নে নব দিগন্ত সূচনা করবে।’

advertisement 3

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘নারীর প্রতি নির্যাতন সহিংসতা বন্ধ, যৌতুক ও বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতির সদস্যদের আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে। আমরা যে সমাজে বাস করি, সেই সমাজের প্রতি আমাদের দায়িত্ব রয়েছে। সেই দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে নিজ নিজ এলাকাকে নারী ও শিশুর জন্য নিরাপদ করে তুলতে হবে। এর মাধ্যমে সমাজ থেকে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা দূর করা সম্ভব হবে।স মবায় সমিতির মূল কথা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করা ও নিজেদের উন্নয়ন করা। স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতির সদস্যরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে থেকে দারিদ্র্য দূর করা ও নির্যাতনসহিংসতা বন্ধ, যৌতুক ও বাল্য বিয়ের মত সামাজিক ব্যাধিমুক্ত বাংলাদেশ গঠন করবে।’

advertisement 4

তিনি বলেন, ‘বিএনপি মহাসচিব  ফখরুল সাহেব বলেছে বর্তমান সরকারের শাসনামলের চেয়ে পাকিস্তান আমলেও অনেক ভাল ছিল। তার এই বক্তব্য মহান মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদ ও আত্মত্যাগকারী ২ লাখ মা-বোনের রক্তের সঙ্গে বেইমানীর শামিল। মির্জা ফখরুল সাহেবের এই বক্তব্য প্রমাণ করে বিএনপি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বে বিশ্বাস করে না। তাদের হৃদয়ে রয়েছে পাকিস্তান এবং স্বাধীনতা বিরোধী জামাত তাদের দোসর। আমি স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বাংলাদেশের মা-বোনদের প্রতি আহ্বান জানাই পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এই বিএনপিকে উপযুক্ত জবাব দেওয়ার সময় এসেছে। আপনারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারী এই বিএনপিকে যেখানেই পাবেন, সেখানে প্রতিহত করতে হবে।’

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভীন আক্তারের সভাপতিত্বে অনুদান বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক  মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল এবং জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান চেমন আরা তৈয়ব।

মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের সকল জেলার উপপরিচালকের কার্যালয়ের মাধ্যমে নিবন্ধিত স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতি রয়েছে ২০ হাজার ৩৫৭টি। এ বছর তিনটি ক্যাটাগরিতে ৩ হাজার ৭০৮টি সমিতির মাঝে ১১ কোটি ৩০ লাখ ৩০ হাজার অনুদান হিসেবে প্রদান করা হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অনুদান বাবদ বাষট্টি লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা এবং ঢাকা জেলার সাধারণ অনুদান পঁচিশ লাখ পঁচিশ হাজার টাকাসহ সর্বমোট সাতাশি লাখ পঁচাত্তর হাজার টাকা নিবন্ধিত স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতির কাছে বিতরণ করা হয়।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল বলেন, ‘স্বেচ্ছাসেবী মহিলা সমিতির এই অনুদান দেশের সুবিধাবঞ্চিত নারীদের সক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে তাদের আয়বর্ধকমূলক কাজে সম্পৃক্ত করে নারীর ক্ষমতায়ন ও দেশকে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে।’ 

 

 

advertisement