advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রুশ নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে গণভোট কেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১১:৫৮ পিএম
advertisement

রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়া প্রশ্নে ইউক্রেনের রুশ নিয়ন্ত্রিত চারটি অঞ্চলের মস্কোসমর্থিত কর্মকর্তারা নিজস্ব কায়দায় গণভোট আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছেন। লুহানস্ক, দোনেৎস্ক, খেরসন ও জাপোরিজিয়ায় গণভোট শুরু হবে আজ, চলবে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। গণভোট আয়োজনকে রাশিয়ারই উদ্যোগ হিসেবে দেখা হচ্ছে। ক্রেমলিন এ গণভোটে সমর্থন দিয়েছে। রাশিয়া এখন কেন এ গণভোট ডাকল, তা বিশ্লেষণ করেছেন বিবিসির পল কারবি। রাশিয়ার এ গণভোট আয়োজনের উদ্যোগে ক্রিমিয়া দখলের প্রতিধ্বনি পাওয়া যাচ্ছে। তবে ক্রিমিয়া দখল থেকে এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। কারণ চারটি অঞ্চলই যুদ্ধে লিপ্ত। অন্যদিকে কোনো গুলি না ছুড়েই ইউক্রেনের কাছ থেকে ক্রিমিয়া দখল করেছিল রাশিয়া।

advertisement 3

প্রায় সাত মাস ধরে ইউক্রেন–রাশিয়ার যুদ্ধ চলছে। এ যুদ্ধের এখন যে পরিস্থিতি, তাতে চাপের মধ্যে আছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। ২৪ ফেব্রুয়ারি পুতিনের নির্দেশে ইউক্রেনে হামলা শুরু করে রুশ বাহিনী। তারা ইউক্রেনের অনেক এলাকা দখল করে নেয়। কিন্তু এখন ইউক্রেন পাল্টা হামলা চালিয়ে রাশিয়ার কাছ থেকে কিছু এলাকা পুনরুদ্ধার করেছে।

advertisement 4

ইউক্রেনীয় সেনাদের এ সাফল্যে নিজ দেশে কট্টরপন্থিদের দিক থেকে সমালোচনার মুখে রয়েছেন পুতিন। এ অবস্থায় তিনি ইউক্রেনের দখলকৃত চারটি অঞ্চলে ক্রিমিয়া-কায়দায় অনুষ্ঠেয় গণভোটে সমর্থন দিয়ে সমালোচকদের জবাব দিয়েছেন।

রাশিয়ার গণমাধ্যমে এ গণভোট নিয়ে জনমত জরিপ প্রকাশ করা হচ্ছে। জরিপগুলোয় দেখানো হচ্ছে, রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার ব্যাপারে ইউক্রেনের চারটি অঞ্চলে ব্যাপক জনসমর্থন রয়েছে। তবে জরিপের এমন দাবির সত্যতা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। কারণ, যুদ্ধের মধ্যেই চার অঞ্চলে গণভোট হবে। তা ছাড়া এ গণভোটের বৈধতা নেই।

২০১৪ সালে ক্রিমিয়ায় এমন গণভোট হয়েছিল। ওই গণভোটের ফল আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় প্রত্যাখ্যান করেছিল। ঠিক একইভাবে এখন যে গণভোটের আয়োজন করা হয়েছে, পশ্চিমারা এর নিন্দা জানাচ্ছে। তারা এ গণভোটকে ‘ভুয়া’ বলে অভিহিত করেছে।

প্রেসিডেন্ট পুতিন ভাবতে পারেন, দখলকৃত এলাকাগুলোকে রাশিয়ার ভূখ- হিসেবে ঘোষণা করা হলে যুদ্ধের গতিপথ বদলাতে পারে। কারণ, তেমনটা হলে তিনি ইউক্রেনের পশ্চিমা সমর্থকদের কিয়েভকে অস্ত্র সরবরাহ বন্ধ করতে বলতে পারবেন।

advertisement