advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভেঙে ফেলা হবে ৫৯ বছরের উর্বশী

ওয়াহিদুল ইসলাম ডিফেন্স ফুলবাড়ী (দিনাজপুর)
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:১৫ এএম
advertisement

‘উর্বশী’ মানে সুন্দরী; অনন্ত যৌবনা অপ্সরা। দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতেও ছিল এক ‘উর্বশী’। ৫৯ বছরের পুরনো সিনেমা হল। কিন্তু অনেক স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহ্যবাহী এ সিনেমা হলটি ভেঙে ফেলা হবে। সেখানে গড়ে তোলা হবে আধুনিক সিনেপ্লেক্সসহ ছয় তলা বাণিজ্যিক ভবন।

advertisement 3

এক সময় গ্রামবাংলা মানুষের বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম ছিল চলচ্চিত্র। ফুলবাড়ীসহ এ অঞ্চলের মানুষের মধ্যে উর্বশী সিনেমা হলটি ছিল বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম। সে সময় ঢাকার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এখানে নতুন ছবি মুক্তি পেত। প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে পরিবার-পরিজন নিয়ে মানুষ ছুটে আসত সিনেমা দেখতে। শুক্র-শনিবার দর্শকদের উপচে পড়া ভিড় থাকত। ভালো কোনো সিনেমা এলে টিকিট নিয়ে কাড়াকাড়ি পড়ে যেত। অথচ তথ্যপ্রযুক্তির অবাধ প্রবাহে কালের গর্ভে হারিয়ে যেতে বসেছে বিনোদনের অন্যতম কেন্দ্র এ সিনেমা হল।

advertisement 4

জানা যায়, তৎকালীন সময়ে এ অঞ্চলের মানুষের বিনোদনের কথা ভেবে ১৯৬৩ সালে ফুলবাড়ীর সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম নূরুল হুদা উর্বশী সিনেমা হলটি চালু করেন। পরে কয়েক দফায় এ সিনেমা হলের কারুকাজ, আসন সংখ্যাসহ নানাভাবে

সাজানো হয়েছিল। এখন তা ভেঙে নতুন করে আধুনিক সিনেপ্লেক্সের আদলে তা নির্মাণ করা হবে বলে জানালেন সিনেমা হলের মালিক ও বাংলাদেশ চলচ্চিত্র প্রদর্শন সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ খুরশিদ আলম মতি।

তিনি বলেন, প্রথম যে স্থানে হলটি ছিল সেখান থেকে ১৯৭৪ সালে ফুলবাড়ী-গোবিন্দগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের পাশে সিনেমা হলটি নতুন করে নির্মাণ করা হয়। ১২০০ আসনের হলটি ১৯৯৫ সালে যশোরের মনিহার এবং ঢাকার মধুমিতা সিনেমা হলের ডিজাইনার হানিফ সাহেবকে দিয়ে নতুন করে ডিজাইন করা হয়। বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে আমি সিনেমা হলটির দায়িত্বে। বর্তমানে সিনেমা হলটি বন্ধ।

তিনি আরও বলেন, এ সিনেমা হলটি ভেঙে মার্কেট করা হবে। নিচে শপিং মল এবং ওপরে ফুডকোট, কনভেনশন সেন্টার, উন্নতমানের আবাসিক হোটেলসহ ১৫০ আসনের একটি এবং ১০০ আসনের একটি মোট দুটি সিনেপ্লেক্সের মতো করে সিনেমা হল চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেখানে উন্নতমানের আসন থাকবে। সাউন্ড সিস্টেম থাকবে উন্নত প্রযুক্তির।

advertisement