advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

মন্ত্রী-এমপি প্রচারে অংশ নিতে পারবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:১৫ এএম
advertisement

আগামী ১৭ অক্টোবর দেশে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জেলা পরিষদ নির্বাচন। বিদ্যমান আইন অনুসারে এই নির্বাচনে জাতীয় সংসদের কোনো এমপি, মন্ত্রী কোনো প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারে বা নির্বাচনী কাজে অংশ নিতে পারবেন না। বিষয়টি মাথায় রেখে নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠু ও প্রভাবমুক্ত রাখতে সতর্ক অবস্থায় আছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

advertisement 3

ইসি কর্মকর্তারা বলেন, এই নির্বাচনে জনগণেরও সম্পৃক্ততা নেই। এই নির্বাচনে সাধারণত স্থানীয় সরকারের অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের জনপ্রতিনিধিরাই ভোটার হন। জেলা পরিষদের নির্বাচনে এমপিরা ভোটার নন। তবে নির্বাচনী কার্যক্রমে এমপিরা অংশগ্রহণ না করলেও এলাকায় অবস্থান করতে পারেন। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা এমপিদের অবস্থান নিয়ে আপত্তি করলে বিনয়ের সঙ্গে এমপিদের নির্বাচনী এলাকা ত্যাগের জন্য অনুরোধ করা হয়।

advertisement 4

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, যেহেতু স্থানীয় এমপিরা জেলা পরিষদের ভোটার নন এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, সেহেতু ওনাদের নির্বাচনী এলাকায় অবস্থান না করাই ভালো।

জেলা পরিষদ আইনে উল্লেখ রয়েছে- সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্র্ণ ব্যক্তি বা সরকারি কর্মকর্তা বা

কর্মচারীর নির্বাচনী প্রচারে এবং সরকারি সুযোগসুবিধা বাধানিষেধ : ১. সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বা সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচনপূর্ব সময়ে নির্বাচনী এলাকায় প্রচারে বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। তবে শর্ত থাকে যে, উক্তরূপ ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী এলাকার ভোটার হলে তিনি কেবল তার ভোট প্রদানের জন্য ভোটকেন্দ্রে যেতে পারবেন। ২. নির্বাচনপূর্ব সময়ে কোনো প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী বা তার পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনী কাজে সরকারি প্রচারযন্ত্র, সরকারি যানবাহন, অন্য কোনো সরকারি সুযোগসুবিধা ভোগ এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের ব্যবহার করতে পারবেন না।’

এখানে সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি বলতে প্রজ্ঞাপনের ১নং ধারার ১৪ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে- সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্র্ণ ব্যক্তি অর্থ প্রধানমন্ত্রী, জাতীয় সংসদের স্পিকার, সরকারের মন্ত্রী, চিফ হুইপ, ডেপুটি স্পিকার, জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা, সংসদ উপনেতা, বিরোধীদলীয় উপনেতা, প্রতিমন্ত্রী, হুইপ, উপমন্ত্রী বা তাহাদের সমমর্যাদার কোনো ব্যক্তি, সংসদ সদস্য এবং সিটি করপোরেশনের মেয়র।

আগামী মাসের ১৭ তারিখ একযোগে দেশের ৬১টি জেলায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া জেলা পরিষদ নির্বাচনে ইতোমধ্যেই কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় ২২ জেলায় আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী জয়ের পথে। সে হিসেবে বাকি ৩৯টি জেলায় ১৭ অক্টোবর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

advertisement