advertisement
advertisement
advertisement

বারবার প্রস্রাবের বেগ, মূত্রথলির ক্যানসার নয় তো?

অনলাইন ডেস্ক
২৭ নভেম্বর ২০২২ ১১:০৯ এএম | আপডেট: ২৭ নভেম্বর ২০২২ ১১:২৫ এএম
মূত্রথলির সমস্যায় ভোগা সত্ত্বেও চিকিৎসকের কাছে যান না বহু মানুষ
advertisement

অনেক সময়ে মূত্রথলির সমস্যায় ভোগা সত্ত্বেও চিকিৎসকের কাছে যান না বহু মানুষ। কারও কারও ক্ষেত্রে তার কারণ লোকলজ্জা।  কেউ আবার সচেতনতার অভাবেই যান না। চিকিৎসকরা কিন্তু বলছেন, সময় থাকতে সাবধান হলে বহু ক্ষেত্রেই ক্যানসার হওয়ার পরেও দীর্ঘ দিন বেঁচে থাকতে পারেন রোগী।

কিছু কিছু বদ অভ্যাস ও অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাত্রা এই ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। তামাক যেভাবে শরীরে যাক না কেন, তা ক্যানসারের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। মূত্রথলির রোগের অন্যতম ‘রিস্ক ফ্যাক্টর’ ধূমপান। তামাকের নেশা মূত্রথলির ক্যানসারের ঝুঁকি অধূমপায়ীদের থেকে ৪-৭ গুণ বেশি।

advertisement

বয়স

advertisement 4

বয়স যত বাড়ে, ক্যানসারের আশঙ্কাও তত বাড়ে। কোন বয়সে এই ক্যানসার হবে, তা নিশ্চিত করে বলা না গেলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই ৫৫ উত্তীর্ণদের মধ্যে ব্ল্যাডার ক্যানসার বেশি দেখা যায়।

পানির সমস্যা

আর্সেনিকযুক্ত পানি পান করলেও মূত্রথলির ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের মধ্যে এই ক্যানসারের প্রবণতা প্রায় ৪ গুণ বেশি। তা ছাড়া বারবার প্রস্রাবের সংক্রমণ হলে এই ক্যানসারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

 কোন লক্ষণগুলো দেখলে সাবধান হবেন?

১। বারবার প্রস্রাব পায়।

২। রাতে বহু বার প্রস্রাবের বেগ আসে, কিন্তু প্রস্রাব হয় না, আটকে যায়।

৩। প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত দেখা যেতে পারে বা কালচে প্রস্রাব হতে পারে ও জ্বালা করে।

৪। এক দিকের কোমরে ব্যথা হতে পারে।

অনেকটা প্রস্টেটের অসুখের মতোই লক্ষণগুলো। অনেক সময়ে ব্ল্যাডার ক্যানসারকে প্রস্টেটের সমস্যা ভেবে খুব একটা আমল দেন না। এর ফলে রোগ ক্রমশ বেড়ে যায়। ক্যানসারের প্রাথমিক উপসর্গ সম্পর্কে সচেতন থাকলে রোগের শুরতেই ডাক্তার দেখিয়ে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা করানো উচিত।

অসুখ শুরুতে ধরা পড়লে সার্জারি, রেডিয়োথেরাপি ও কেমোথেরাপি করে ব্ল্যাডার ক্যানসার নিয়ন্ত্রণ করা যায়। কিছু ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ ব্ল্যাডার বাদ দিয়ে কৃত্রিম ব্ল্যাডার তৈরি করে প্রতিস্থাপন করা হয়। তাই সময় থাকতেই সাবধান হতে হবে।

advertisement