advertisement
advertisement
advertisement

সুস্থ থাকতে ডায়েটে রাখুন সজনে পাতা

অনলাইন ডেস্ক
৬ ডিসেম্বর ২০২২ ১০:২৮ এএম | আপডেট: ৬ ডিসেম্বর ২০২২ ১০:২৮ এএম
প্রতিদিন পাতে রাখুন সজনে পাতা
advertisement

সজিনা গাছের পাতাকে বলা হয় অলৌকিক পাতা। এটি ভীষণই পুষ্টিকর একটি হার্ব। গবেষকরা সজিনা পাতাকে বলে থাকেন, নিউট্রিশন্স সুপার ফুড এবং সজিনা গাছকে বলা হয় মিরাক্কেল ট্রি। সজিনা পাতা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলে শরীরকে করে কার্যক্ষম। চলুন জেনে নেই এই পাতার কার্যকারিতা।

  •  
  • এই পাতার নানা গুণাগুণ ও স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে। লেবু থেকে সাত গুন বেশি ভিটামিন সি আছে। যা আমাদের দেহের ভিটামিন সি-র চাহিদা পূরণে সক্ষম। আর করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খাওয়া উচিত৷ 
  • সজিনা পাতায় ডিম থেকে প্রায় দুই গুন বেশি প্রোটিন রয়েছে এবং দুধের চেয়ে চার গুন বেশি ক্যালসিয়াম আছে। যা মানবদেহের জন্য খুব উপকারী। অন্ধত্ব দূরীকরণেও সজিনা ডাটা ব্যাপক কার্যকারী, কারণ এতে আছে গাজর থেকেও চার গুন বেশি ভিটামিন ‘এ’। তাই যারা অন্ধত্ব সমস্যায় ভুগে তারা সজনে পাতা খেলে উপকার পাবেন।
  • সজিনা পাতা এনিমিয়াকেও ধ্বংস করে কেননা শাকের তুলনায় পঁচিশ গুন বেশি আয়রন রয়েছে এতে। কলা থেকে তিন গুন বেশি পটাশিয়াম রয়েছে। শরীরের পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে সজিনা পাতা দারুণ উপযোগী।
  • এই পাতা আমাদের শরীরে এন্টি জিংক হিসেবে কাজ করে, হার্ট ভালো রাখে এবং উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে। যৌবন ধরে রাখতেও বিশেষ ভূমিকা পালন করে সজিনা পাতা।
  • এটি রক্তে সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে। কোলেস্টেরলের লেভেল কমিয়ে, হজম শক্তি বৃদ্ধি করে ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। এজমা রোগীদের জন্য এটা বিশেষ উপকারী কারণ একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে তিন গ্রাম পাতা দুইবেলা করে তিন সপ্তাহ খেলে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়।
  • সজিনার বিজের মধ্যে রয়েছে এন্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টিস। এটা পানি বিশুদ্ধকরনে অত্যন্ত কার্যকারী। সজিনা ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। গর্ভধারণের পরবর্তীতে সব মায়েদের জন্য সজিনা পাতা খুবই উপকারী। সজিনা পাতায় আরও রয়েছে বিরানব্বই ধরনের পুষ্টি উপাদান, ছেচল্লিশ ধরনের এন্টি অক্সিডেন্ট, আঠারো ধরনের এমিনো এসিড ও আট ধরনের এসেনশিয়াল এমিনো এসিড। তাই সজিনা পাতাকে বলা হয় নিউট্রেশন্স সুপার ফুড, ন্যাচারাল মাল্টিভিটামিন এবং মিরাক্কেল ভেজিটেবল।
  • ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, কোলাইটিস এবং জন্ডিসের সময় ব্যাপক শুশ্রূষাকারী সজনে পাতার ঝোল। কাঁচা পাতার রস খেতে পারলে তো কথাই নেই। এছাড়াও শত বছর ধরে প্রায় তিনশরও বেশি রোগের ঔষধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে।
  • সজিনা পাতা বিভিন্ন ভাবে খাওয়া যেতে পারে, যেমন ভাজা,রান্না, বড়া,ভর্তা ও শুকিয়ে গুড়ো করে।নিয়মিত সজিনা পাতা বা মরিঙ্গা খাওয়ার ফলে আমরা আমাদের দেহকে করতে পারি সুস্থ, সবল ও সতেজ। কারণ এটি মানবদেহের জন্য দারুণ উপকারী।

 

advertisement
advertisement