advertisement
advertisement
advertisement

কাঁদলেন মাসুদ আলী খান

বিনোদন প্রতিবেদক
২৩ জানুয়ারি ২০২৩ ০১:৩০ পিএম | আপডেট: ২৩ জানুয়ারি ২০২৩ ০১:৪৯ পিএম
অভিনেতা মাসুদ আলী খান
advertisement

দীর্ঘদিন ধরে অভিনয় থেকে দূরে আছেন গুণী অভিনেতা মাসুদ আলী খান। বয়সের ভারে ঠিকমত হাঁটাচলাও করতে পারেন না এই অভিনেতা। হুইল চেয়ারই এখন তার ভরসা। এ কারণে বেশির ভাগ সময় ঘরের ভেতরেই কাটাতে হয় মাসুদ আলী খানকে।

প্রায় ৩ মাস পর গতকাল রোববার ঘর থেকে বাহির হন ৯৩ বছর বয়সী বরেণ্য এই অভিনেতা। অংশ নেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত ‘আলী যাকের নতুনের উৎসব’-এ। আর এদিন নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের আয়োজনে খালেদ খান সম্মাননা দেওয়া হয় মাসুদ আলী খানকে। ৬ দিনব্যাপী এই উৎসবের উদ্বোধনী দিন ছিল গতকাল।

advertisement

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- বরেণ্য অভিনেতা মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, ফেরদৌসী মজুমদার, আসাদুজ্জামান নূর, সৈয়দ জামিল আহমেদ, সারা যাকের, নিমা রহমানসহ অনেকেই। আর দীর্ঘদিন পর সহশিল্পীদের কাছে পেয়ে কান্না আটকে রাখতে পারেননি মাসুদ আলী খান।

advertisement 4

এ সময় কান্না জড়ানো কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘অনেকদিন কাছের মানুষজনদের দেখলাম। এই আনন্দ প্রকাশ করার মতো নয়। জীবনের বেশির ভাগ সময় কাটিয়েছি অভিনয়ের পেছনে। আর এই জগৎটাই ছিল আমার সব কিছু। এখন ঘরের চার দেয়ালে বন্দী। চাইলেও সবার সঙ্গে দেখা করতে পারি না। তবে ফোনে কথা হয়। আজ সবাইকে পেয়ে খুব ভালো লাগছে।’

সম্মাননা পাওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মাসুদ আলী খান বলেন, ‘খুবই ভালো লাগছে। খালেদ খানের সঙ্গে আমার চমৎকার সম্পর্ক ছিল। তাকে সবসময় বলতাম, তুমি গানটাও নিয়মিত কর। অসাধারণ গায়কি ছিল তার।’

বরেণ্য অভিনেতা আসাদুজ্জামান নূরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ছিলেন- সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। বিশেষ অতিথি শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। অনুষ্ঠানে চার জন গুণীকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

মামুনুর রশীদকে দেওয়া হয় সৈয়দ শামসুল হক সম্মাননা। মাসুদ আলী খানকে দেওয়া হয় খালেদ খান সম্মাননা। নাসির উদ্দিন ইউসুফকে দেওয়া হয় আলী যাকের সম্মাননা। জিয়া হায়দার সম্মাননা পান সৈয়দ জামিল আহমেদ। তাদেরকে উওরীয়, ক্রেস্ট ও নগদ অর্থ প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, ১৯৫৬ সালে এ দেশের প্রথম নাটকের দল ড্রামা সার্কেলের সঙ্গে যুক্ত হন মাসুদ আলী খান। সেই থেকে অভিনয়ে ব্যস্ততা বেড়ে যায়। ৫ দশকেরও বেশি সময় টানা অভিনয় করেছেন তিনি।

তার অভিনীত কয়েকটি উল্লেখযোগ্য সিনেমা হচ্ছে ‘দুই দুয়ারি’, ‘দীপু নাম্বার টু’, ‘মাটির ময়না’। তার অভিনীত আলোচিত কয়েকটি নাটক হচ্ছে ‘কূল নাই কিনার নাই’, ‘এইসব দিনরাত্রি’, ‘কোথাও কেউ নেই’।

advertisement