advertisement
advertisement
advertisement

হারিছ চৌধুরীর মেয়েকে ‘হত্যার হুমকি’

সিলেট ব্যুরো
২৪ জানুয়ারি ২০২৩ ১০:০৭ পিএম | আপডেট: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩ ০৮:৩৫ এএম
হারিছ চৌধুরী ও তার মেয়ে সামিরা তানজিন চৌধুরী। পুরোনো ছবি
advertisement

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক উপদেষ্টা প্রয়াত আবুল হারিছ চৌধুরীর মেয়ে সামিরা তানজিন চৌধুরীকে হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। হারিছ চৌধুরীর চাচাতো ভাই, বিএনপি নেতা আশিক উদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করা হয়েছে।

ফৌজদারি, জননিরাপত্তা ও ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে আশিক চৌধুরীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে থানায় অভিযোগ করেছেন সামিরার চাচাতো ভাই রাহাত চৌধুরী। তিনি হারিছ চৌধুরীর ভাই কামাল চৌধুরীর ছেলে।

advertisement

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, হারিছ চৌধুরীর একমাত্র মেয়ে ব্যারিস্টার সামিরা তানজিন চৌধুরীকে ‘গলাটিপে মারবেন’ বলে হুমকি দিয়েছেন তার চাচা আশিক উদ্দিন চৌধুরী। সিলেটের কানাইঘাটে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এই হুমকি দেন তিনি।

advertisement 4

আশিক উদ্দিন চৌধুরী সিলেট জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি ও কানাইঘাট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান। তিনি প্রয়াত হারিছ চৌধুরীর আপন চাচাতো ভাই।

গত ১৭ জানুয়ারি সকালে আশিক উদ্দিন চৌধুরীর বাবার নামে ‘রফিকুল হক চৌধুরী স্মৃতি পরিষদ’ এর আত্মপ্রকাশ ঘটে। সেদিন আত্মপ্রকাশ ও শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ওই অনুষ্ঠানে সামিরা তানজিন চৌধুরীকে ‘গলাটিপে মারার’ হুমকি দেন আশিক চৌধুরী। এ ছাড়া হারিছ চৌধুরীর স্বজনদের বিরুদ্ধে বিষোদ্গারও করেন তিনি।

জানা গেছে, হারিছ চৌধুরীর বাবার নামে এলাকায় ‘শফিকুল হক চৌধুরী মেমোরিয়াল এতিমখানা’ আছে। ২০০৩ সালে এই এতিমখানা প্রতিষ্ঠিত হয়।

হারিছ চৌধুরী মারা যাওয়ার পর তার মেয়ে সামিরা চৌধুরী এই এতিমখানার বিষয়ে খোঁজ-খবর রাখতে শুরু করেন। চাচা কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও চাচাতো ভাইদের সঙ্গে এতিমখানার বিষয়ে কথাবার্তা বলেন সামিরা। এতে ক্ষুব্ধ হন আশিক চৌধুরী। তাকে পাশ কাটিয়ে অন্যদের সঙ্গে এতিমখানার বিষয়ে কথাবার্তা বলায় রেগে যান তিনি। আশিক চৌধুরীর রাগ আর ক্ষোভের বিস্ফোরণ ঘটে গত ১৭ জানুয়ারি।

এ বিষয়ে কথা বলতে আশিক উদ্দিন চৌধুরীর মোবাইল ফোনে কল করা হলে তিনি পরে কথা বলবেন বলে জানান।

সামিরা চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

কানাইঘাট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) পিযুষ চন্দ্র সিংহ বলেন, ‘একটি লিখিত অভিযোগ এসেছে। পুলিশ বিষয়টি দেখছে।’

উল্লেখ্য, হারিছ চৌধুরীদের গ্রামের বাড়ি কানাইঘাটের দিঘিরপাড় পূর্ব ইউনিয়নের দর্পনগর গ্রামে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ওয়ান-ইলেভেন সরকারের সময় থেকে পলাতক ছিলেন। তিনি যুক্তরাজ্য, ইরান, ভারতসহ বিভিন্ন দেশে আছেন বলে গুজব ছিল। তবে গত বছরের শুরুর দিকে জানা যায়, ২০২১ সালের ৩ সেপ্টেম্বর ঢাকাতেই মারা গেছেন হারিছ চৌধুরী।

advertisement