advertisement
advertisement
advertisement

মিরপুর চিড়িয়াখানায় দুদকের অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ জানুয়ারি ২০২৩ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৬ জানুয়ারি ২০২৩ ০৩:২১ এএম
advertisement

মিরপুর জাতীয় চিড়িয়াখানায় একই টিকিট একাধিক ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগ পেয়ে অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ছদ্মবেশে দুদকের একটি অভিযান দল সেখানে অভিযান চালিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি। গতকাল বুধবার দুদকের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও পুলিশের সহায়তা এ অভিযান চালানো হয় বলে সংস্থাটির উপপরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক জানিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, অভিযান পরিচালনাকালে দুদক টিম ছদ্মবেশে টিকিট কেনে। এক্ষেত্রে টিমের কাছে একই টিকিট দুজনের কাছে বিক্রির অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়নি। চিড়িয়াখানার পরিচালকের সঙ্গে কথা বলেছেন দুদক কর্মকর্তারা। একই টিকিট দুজনের কাছে বিক্রির বিষয়ে তাদের দৃষ্টিগোচর হলে জড়িতদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ সময় চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের কাছে বিগত বছরগুলোর টিকিট বিক্রি সংক্রান্ত টেন্ডারের বিজ্ঞপ্তি, মূল্যায়নপত্র ও সংশ্লিষ্ট অন্য রেকর্ডপত্র সংগ্রহ করা হয়।

advertisement

এদিকে কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে ভুয়া বিল-ভাউচার তৈরি করে পৌরসভার অর্থ আত্মসাৎ, একই সড়ক বারবার সংস্কার দেখিয়ে অর্থলুটসহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে প্রেক্ষিতে অভিযান চালিয়েছে দুদক। দুদকের সমন্বিত কুমিল্লা জেলা কার্যালয় থেকে একটি অভিযান দল পৌরসভার সংস্কার করা তিনটি রাস্তা পরিদর্শন করে। এ ছাড়া পৌরসভার বিভিন্ন ক্রয় ও নির্মাণকাজ সংক্রান্ত বিল-ভাউচার, মাস্টাররোলে নিযুক্ত কর্মচারীদের হাজিরা ও বেতনশিট, বার্ষিক আয়-ব্যয়ের বিবরণীসহ সংশ্লিষ্ট রেকর্ডপত্র সংগ্রহ করেছে দুদক টিম।

advertisement 4

এ ছাড়া শেরপুর সদর সাবরেজিস্ট্রারের কার্যালয়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দলিল সম্পাদনে ঘুষ দাবির অভিযোগে অভিযান পরিচালনা করেছে দুদকের জামালপুরের সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের একটি টিম। এ সময় দলিল রেজিস্ট্রির জন্য আসা বেশ কয়েকজন সেবাগ্রহীতার সঙ্গে অভিযোগের বিষয়ে কথা বলেছে দুদক টিমের সদস্যরা। তবে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করে সেগুলো বিশ্লেষণে ঘুষ লেনদেনের দালিলিক প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

advertisement