মহামারীর মধ্যেও কোটিপতি হয়েছে অর্ধকোটি মানুষ

আমাদের সময় ডেস্ক
২৪ জুন ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ২৪ জুন ২০২১ ০০:৫৫

কোভিড-১৯ মহামারীর এই সময়ে বিশ্বে যখন অনেক দরিদ্র মানুষ আরও দরিদ্র হয়েছেন, সেখানে বিশ্বে কোটিপতিদের সংখ্যা আরও ৫২ লাখ বেড়ে পাঁচ কোটি ৬১ লাখে দাঁড়িয়েছে বলে ক্রেডিট সুইসের গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে। শেয়ারবাজারের ক্ষতি কাটিয়ে ওঠা এবং বিশেষ করে বাড়িঘরের মূল্যবৃদ্ধি পাওয়া তাদের কোটিপতি হয়ে ওঠার পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছে। গবেষকরা বলছেন, ধনসম্পদ বৃদ্ধির বিষয়টি দেখা গেছে মহামারীর কারণে অর্থনৈতিক ক্ষয়ক্ষতি থেকে যেন একেবারেই আলাদা একটা বিষয়।

অর্থনীতিবিদ এবং গ্লোবাল ওয়েলথ রিপোর্টের লেখক অ্যান্থনি শোরকস বলছেন, মহামারীর কারণে বিশ্ববাজারের ওপর একটি স্বল্পমেয়াদি প্রভাব পড়েছিল, কিন্তু ২০২০ সালের শেষ নাগাদ তার বেশির ভাগ কাটিয়ে ওঠা গেছে। বিশ্বের ধনীদের সম্পদ এই বিপদের মধ্যেও শুধু যে স্থিতাবস্থায় থেকেছে তা নয়, বরং বছরের দ্বিতীয় ভাগে তা আরও বেড়েছে। তবে প্রাপ্তবয়স্ক মানুষদের মধ্যে সম্পদের পার্থক্য ২০২০ সালে আরও বেড়েছে। কিছু কিছু বিষয় ভবিষ্যতে সংশোধন হতে পারে। যেমন কোন একটা পর্যায়ে ব্যাংক সুদের হার আবার বাড়বে, তখন আবার সম্পদের মূল্য কমে যাবে।

ক্রেডিট সুইসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাকালেও বিশ্বে সম্পদের পরিমাণ বেড়েছে ৭.৪ শতাংশ। একুশ শতকের শুরুতে যে পরিমাণ মানুষের কাছে অন্তত ১০ হাজার ডলার এবং এক লাখ ডলার ছিল, তাদের সংখ্যা এখন তিনগুণ বেড়েছে। ২০০০ সালে এ রকম মানুষের সংখ্যা ছিল ৫০ কোটি ৭০ লাখ। ২০২০ সাল নাগাদ সেই সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭০ কোটি। এই সম্পদ বৃদ্ধির কারণ হচ্ছে, উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর সমৃদ্ধি বাড়া, বিশেষ করে চীনের। এ ছাড়া উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যবিত্তদেরও বিকাশ হচ্ছে।

ক্রেডিট সুইসের প্রধান বিনিয়োগ কর্মকর্তা ন্যানেত্তে হেচলার-ফায়ডহের্বে বলেন, মহামারীর কারণে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া ব্যবসা এবং ব্যক্তিদের জন্য বিশ্বের সরকারগুলো এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো যে ব্যাপক অর্থনৈতিক সহায়তা প্রকল্প নিয়েছে, সুদের হার কমিয়ে দিয়েছে- তার ভূমিকা অস্বীকার করার উপায় নেই। এ কারণেই মহামারীর কারণে বিশ্বের বড় একটি সংকট ঠেকিয়ে দেওয়া গেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো যে সুদের হার কমিয়েছে, সম্ভবত তার কারণেই বড় প্রভাব পড়েছে। এটা একটা প্রধান কারণ যে, শেয়ারের দাম বেড়েছে, বাড়ির মূল্য বৃদ্ধি হয়েছে। এর ফলে আমাদের বিবেচনায় একেকজন ব্যক্তির সার্বিক ধনসম্পদ বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ব্যাংকঋণের সুদের হার বিশ্বব্যাপী কমে যাওয়ায় তার প্রভাব সরাসরি শেয়ারের দাম ও বাড়ি বা অ্যাপার্টমেন্টের ওপরে পড়েছে। এ কারণে মানুষের ব্যক্তিগত সম্পদের পরিমাণও বেড়েছে। তবে তিনি সতর্ক করে দিয়েছেন, জিডিপির তুলনায় অনেক দেশে জনগণের মাথাপিছু ঋণের পরিমাণ অন্তত ২০ শতাংশ বেড়ে গেছে। খবর বিবিসি বাংলার।