advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
Dr Shantu Kumar Ghosh
advertisement
advertisement

‘জাপান আইটি উইক’ এ অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ

ফখরুল ইসলাম জাপান
৯ মে ২০১৯ ১৪:৪৭ | আপডেট: ৯ মে ২০১৯ ১৪:৪৭

এশিয়ার বৃহত্তম তথ্যপ্রযুক্তি মেলা ‘জাপান আইটি উইক’ শুরু হয়েছে। গতকাল বুধবার থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে আগামীকাল শুক্রবার (১০ মে) পর্যন্ত। জাপানের এই আইটি মেলায় অংশ নিয়েছে বাংলাদেশের ২৪ টি আইটি কোম্পানি।

বাংলাদেশের আইটি খাতে জাপানি ব্যবসায়ীদের অধিকতর বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেেশের রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।
মেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নের বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন এবং দেশ থেকে আগত আইটি উদ্যোক্তাদের সাথে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেন। তিনি তাঁদের যেকোনো প্রয়োজনে দূতাবাসের সর্বাত্মক সহযোগিতার নিশ্চয়তা প্রদান করেন।

পরে মেলার ভেন্যু টোকিও বিগ সাইটে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সম্ভাবনা নিয়ে একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জাপানি আইটি ব্যবসায়ী প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন।

জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের মান্যবর রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন। রাষ্ট্রদূত বলেন তথ্যপ্রযুক্তি খাত বাংলাদেশের সামগ্রিক উন্নয়নকে তরান্বিত করতে তথা সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ লক্ষ্য অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। আর এজন্য বাংলাদেশ সরকার এই খাতের উন্নয়নে নানাবিধ প্রণোদনা প্রদান করছে।

তিনি বলেন, ‌২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ২ মিলিয়ন লোকের কর্মসংস্থান ও ৫ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি নিশ্চিতকরণের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে যা মোট জিডিপির ৫ শতাংশ অবদান রাখবে।

তিনি আশা প্রকাশ করেন সার্বিক এই উদ্যোগ দু’দেশের আইটি ব্যবসায়ীদের মধ্যে ব্যবসার নবদিগন্ত উন্মোিচিত করবে। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের আইটি খাতে জাপানী ব্যবসায়ীদের অধিকতর বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

সেমিনারে আরোও উপস্থাপনা করেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সচিব হোসনে আরা বেগম, বেসিস এর সাবেক সভাপতি মাহাবুব জামান এবং বাংলাদেশ-জাপান আইটি ইনকর্পোরেশনের ইয়াশুহিরো আকাশি।

সেমিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে বাংলাদেশ দূতাবাস, টোকিও; আইসিটি বিভাগ, ঢাকা; বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ; বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ সফটওয়্যার এন্ড ইনফরমেশন সার্ভিস (বেসিস)।

সেমিনারে সহযোগিতা করে জাইকা, জেট্রো, ইউনিডো, জাপানের ইনফরমেশন -টেকনোলজি প্রমোশন এজেন্সি, কম্পিউটার সফটওয়্যার অ্যাসোসিয়েশন অব জাপানসহ অন্যান্য সহযোগী সংগঠন।