advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নিখোঁজের দেড় বছর পর বাসায় চাকরিচ্যুত র‌্যাব কর্মকর্তা ডিউক

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:১৫ এএম
হাসিনুর রহমান
advertisement

জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে যোগাযোগ থাকার অভিযোগে চাকরিচ্যুত র‌্যাব কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কর্নেল হাসিনুর রহমান ডিউক বাড়ি ফিরেছেন। গত শুক্রবার মধ্যরাতে তিনি তার মিরপুরের বাসায় ফেরেন বলে স্ত্রী শামীমা আখতার এ

advertisement 3

তথ্য নিশ্চিত করেছেন। র‌্যাবের একটি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ডিউক দেড় বছর আগে মিরপুর ডিওএইচএস এলাকা থেকে নিখোঁজ হয়েছিলেন। তার সন্ধান চেয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে সংবাদ

advertisement 4

সম্মেলনও করা হয়েছিল।

শামীমা আখতার গতকাল শনিবার জানান, শুক্রবার মধ্যরাতে বিধ্বস্ত চেহারায় বাসায় ফিরে আসেন তার স্বামী। ১৮ মাস আগে যে পোশাক পরে হাসিনুর বাসা থেকে বের হয়েছিলেন, সেই পোশাকই ছিল তার গায়ে। তবে এতদিন তিনি কোথায় কীভাবে ছিলেন, কীভাবে আবার বাড়ি ফিরে এলেন সে বিষয়ে এখনো কিছু জানাননি।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদে থাকাকালে সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত হয়েছিলেন হাসিনুর রহমান। তার আগে ২০০৯ সালে চট্টগ্রাম র‌্যাাব ৭-এর অধিনায়ক ছিলেন তিনি। ওই সময় তার বিরুদ্ধে নিষিদ্ধ উগ্রবাদী সংগঠন হিজবুত

তাহরীরের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ ওঠে। পরে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় চাকরিচ্যুত হয়ে কয়েক বছরের সাজা খাটেন হাসিনুর। শিক্ষার্থীদের ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ আন্দোলনের সময়ও হাসিনুরের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়া

তথ্য ছড়ানোর বিষয়টি গোয়েন্দা সংস্থার নজরে ছিল বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে উঠে আসে।

২০১৮ সালের ৮ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে সাদা পোশাকে একদল লোক হাসিনুরকে তুলে নিয়ে যায় বলে জানায় পরিবার। ওই সময় এক সংবাদ সম্মেলনে শামীমা আখতার স্বামীর খোঁজে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

করেন। তিনি জানান, তার স্বামী ‘কোনো অপরাধের সঙ্গে’ জড়িত নন, তাকে ‘ভুল বোঝা হচ্ছে’। ২৮ বছর নিষ্ঠার সঙ্গে হাসিনুর সেনাবাহিনীতে কাজ করেছেন। দেশের প্রতি অবদানের জন্য তিনি বাংলাদেশ রাইফেলস

পদক, বীরপ্রতীক ও বিপিএম খেতাবও পেয়েছেন। কারাভোগের পর তিনি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন।

এদিকে হাসিনুর রহমান বাসায় ফেরার তথ্য নিশ্চিত করে পল্লবী থানার এসআই মনিরুল ইসলাম জানান, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে হাসিনুর বাসায় আসেন বলে তার স্ত্রী জানিয়েছেন। তবে তার সঙ্গে এখনো কথা বলা সম্ভব

হয়নি।

advertisement