advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

জীবিতকে মৃত দেখিয়ে বিধবা ভাতার আবেদন

ঈশ^রগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি
৬ মে ২০২১ ০০:০০ | আপডেট: ৬ মে ২০২১ ০৯:৫৭
advertisement

জীবিত সাবেক স্বামীকে মৃত দেখিয়ে বিধবা ভাতার জন্য আবেদন করেছেন আসমা খাতুন (৩৬) নামের এক নারী। উপজেলা সমাজসেবা অফিসের চূড়ান্ত তালিকায় নামও রয়েছে তার। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে গতকাল বুধবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন ওই নারীর সাবেক স্বামী হারুন অর রশীদ আকন্দ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাকির হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। জীবিতকে মৃত দেখিয়ে বিধবা ভাতা নেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তদন্তসাপেক্ষে ভাতা বাতিলসহ জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগে জানা গেছে, ময়মনসিংহের ঈশ্বররগঞ্জ উপজেলাধীন পৌর এলাকার ৩নং ওয়ার্ডের দত্তপাড়া গ্রামের মৃত রজব আলীর ছেলে হারুন অর রশীদ আকন্দের সঙ্গে ২০০৫ সালে একই গ্রামের তাহির উদ্দিনের মেয়ে আসমা খাতুনের বিয়ে হয়। পরে সম্পর্কের টানাপড়েনে তাদের বিবাহবিচ্ছেদ

ঘটে। পরবর্তীতে পার্শ্বর্র্তী গৌরীপুর উপজেলার বেতন্দর গ্রামের সাবেক মেম্বার আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে আসমার বিয়ে হয়। ওই সংসারে আসমার একটি ছেলে সন্তানও রয়েছে।

ঈশ্বররগঞ্জ উপজেলার ২০২০-২১ অর্থবছরের বিধবা ভাতা ভোগীদের নির্বাচিত চূড়ান্ত তালিকায় আসমা খাতুনের (ক্রমিক নং ৭৩) নাম রয়েছে। এতে আসমা খাতুনের নামের পাশে লেখা- স্বামী : মৃত হারুন আকন্দ। বিষয়টি জানতে পেরে এর প্রতিকার চেয়ে সাবেক স্বামী লিখিত অভিযোগ করেছেন।

এ ব্যাপারে আসমা খাতুন বলেন, ‘জাতীয় পরিচয়পত্রে সাবেক স্বামীর নাম রয়েছে, তাই এ নাম ব্যবহার করেছি।’ জীবিতকে মৃত বানিয়েছেন কেন- জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘এটা আমার ভুল হয়ে গেছে।’

৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মোতালেব বলেন, আবেদনকারীকে আমি চিনি, এ ব্যাপারে আমি কোনো মৃত্যু সনদও দেইনি। বিষয়টি জানতে পেরে পৌরসভার দায়িত্বপ্রাপ্ত সমাজকর্মী আনিসুর রহমানকে আসমা খাতুনের বিধবা ভাতার বইটি বাতিল করতে বলা হয়েছে।

উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মিজানুল ইসলাম আকন্দ বলেন, পৌরমেয়রের স্বাক্ষরিত তালিকা মোতাবেক তালিকা অনুমোদন করা হয়েছে। তারপরও যদি এমন ঘটনা ঘটে তবে তালিকা থেকে আসমার নাম বাদ দেওয়া হবে।

ঈশ্বররগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুস ছাত্তার বলেন, আসমা খাতুন বিধবা ভাতার আবেদনে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন। বিষয়য়টি আমার জানা ছিল না। তার বিধবা ভাতা বাতিল করা হবে।

advertisement