advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement

সব খবর

advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

তিন ডাক্তার ও চার নার্স করোনায় আক্রান্ত

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
২৪ জুলাই ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৩ জুলাই ২০২১ ১১:০৯ পিএম
advertisement

সীমান্তবর্তী জেলা সুনামগঞ্জে করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলছে। সরকারি বিধিনিষেধ ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে নারাজ সাধারণ মানুষ। মাইকিং করেও সাধারণ মানুষকে সচেতন করা সম্ভব হচ্ছে না। জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের জেল-জরিমানাকেও ভয় পাচ্ছেন না অনেকেই।

জেলা সিভিল সার্জন ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের প্রকাশিত তথ্যানুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় (বৃহস্পতিবার নমুনা পরীক্ষা করা) জেলায় ৩৬ জনের করোনা পজিটিভ হয়েছে। ৪৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় তাদের করোনা শনাক্ত হয়।

সাধারণ মানুষের মতো এবার সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের তিন চিকিৎসক ও চার নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্ত তিন চিকিৎসক হলেন সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের অর্থোপেডিক্স বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. শ্যামল চন্দ্র বর্মণ, হাসপাতালের বহির্বিভাগের মেডিক্যাল অফিসার ডা. জহরলাল দাশ শিপলু ও হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিক্যাল অফিসার ডা. সৈকত দাস। এই তিন চিকিৎসক করোনা প্রতিরোধ ভ্যাকসিন নিয়েও আক্রান্ত হয়েছেন।

আক্রান্ত নার্সরা হলেন স্বপ্না হাগিদক, মাহমুদা আক্তার, খাদিজাতুল কোবরা ও ঝুউমি পিসিম। তাদের মধ্যে নার্স খাদিজাতুল কোবরা সদর হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে চিকিৎসাধীন। অন্য তিনজন নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন বলে জানা গেছে। সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা. রফিকুল ইসলাম জানান, একজন নার্স হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে, অন্য সবাই নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন এবং সবাই চিকিৎসা নিচ্ছেন।

গত ১৫ জুলাই সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালের বহির্বিভাগের মেডিক্যাল অফিসার ডা. জহরলাল দাশ শিপলু করোনা পজিটিভ হন। এর পর গত ১৯ জুলাই সোমবার করোনা পজিটিভ হন হাসপাতালের অর্থোপেডিক্স বিভাগের জুনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. শ্যামল চন্দ্র বর্মণ। এর পর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিক্যাল অফিসার ডা. সৈকত দাস ২০ জুলাই বুধবার করোনা পজিটিভ হন। সিভিল সার্জন ডা. মো. শামস উদ্দিন বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে আমরা জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় করে দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছি। মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে অনুরোধ করছি।

advertisement