advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

আফগানিস্তানে তুমুল লড়াই, ৪০ বেসামরিক নিহত

অনলাইন ডেস্ক
৩ আগস্ট ২০২১ ০৯:০৭ পিএম | আপডেট: ৩ আগস্ট ২০২১ ১১:৪১ পিএম
ছবি : সংগৃহীত
advertisement

তিন দিনের তীব্র লড়াইয়ের পর আফগানিস্তানের অবরুদ্ধ শহরে তালেবান বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযানের প্রস্তুতি শুরু করেছে দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় হেলমান্দ প্রদেশের রাজধানী লস্কর গাহতে তীব্র লড়াই চলছে। জাতিসংঘ বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় লস্কর গাহতে কমপক্ষে ৪০ বেসামরিক নিহত হয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার অভিযানের আগে অবরুদ্ধ এলাকার বাসিন্দাদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে অন্যত্র যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে দেশটির সরকারি বাহিনী। খবর এএফপি’র

গত মে মাসের শুরুর দিকে যুদ্ধবিধ্বস্ত এই দেশটি থেকে বিদেশি সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা আসার পর আফগানিস্তানের বেশিরভাগ গ্রামীণ এলাকার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তালেবান। বর্তমানে দেশটির এই বিদ্রোহী গোষ্ঠী প্রাদেশিক রাজধানীগুলোর দখলের দিকে মনযোগ দিয়েছে। কিন্তু প্রাদেশিক রাজধানী দখলের অভিযান চালাতে গিয়ে প্রচণ্ড প্রতিরোধের মুখে পড়তে হচ্ছে তালেবান যোদ্ধাদের।

আফগান সেনাবাহিনীর ২১৫ মাইওয়ান্দের কমান্ডার জেনারেল সামি সাদাত ওই এলাকার বাসিন্দাদের যত দ্রুত সম্ভব বাড়ি-ঘর ছাড়ার আহ্বান জানিয়েছেন। ২ লাখ মানুষের এই শহরের বাসিন্দাদের উদ্দেশে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বার্তায় তিনি বলেছেন, ‘দয়া করে যত দ্রুত সম্ভব বাড়ি-ঘর ছাড়ুন, যাতে আমরা অভিযান শুরু করতে পারি।’

জেনারেল সামি সাদাত বলেছেন, ‘আমি জানি নিজেদের বাড়ি-ঘর ছাড়া আপনাদের জন্য অত্যন্ত কষ্টকর। এটা আমাদের জন্যও কঠিন। আপনি যদি কয়েকদিনের জন্য বাস্ত্যুচুত হন, তাহলে দয়া করে আমাদের ক্ষমা করুন। তালেবানরা যেখানেই থাকুক না কেন, আমরা তাদের বিরুদ্ধে লড়াই করব। আমরা তাদের বিরুদ্ধে লড়ব। আমরা তালেবানের একজন যোদ্ধাকেও জীবিত রাখব না।’

মঙ্গলবার সকালের দিকে দেশটির কর্মকর্তারা জানান, লস্কর গাহর এক ডজনেরও বেশি স্থানীয় রেডিও এবং টেলিভিশন স্টেশনের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে তালেবানের বিদ্রোহীরা। এই শহরে শুধুমাত্র তালেবানপন্থী একটি টেলিভিশন স্টেশন ইসলামি অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে।

এদিকে, গ্রামীণ এলাকায় অবিলম্বে লড়াই বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘের সহায়তা মিশন (ইউএনএএমএ) এক টুইট বার্তায় বলেছে, লড়াই তীব্র হওয়ায় আফগান বেসামরিকদের জন্য গভীর উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

advertisement