advertisement
DARAZ
advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

উৎস নিয়ে বিতর্ক
উহান থেকেই কি ছড়িয়েছে করোনা

আমাদের সময় ডেস্ক
৪ আগস্ট ২০২১ ১২:০০ এএম | আপডেট: ৩ আগস্ট ২০২১ ১০:৫৪ পিএম
advertisement

চীন ও সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা বারবার প্রত্যাখ্যান করা সত্ত্বেও পশ্চিমারা, বিশেষত যুক্তরাষ্ট্র, দাবি করে আসছে যে, উহানের একটি গবেষণাগার থেকেই নতুন করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে এবং বিশ্বকে এ ভাইরাসের সংক্রমণ-ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করতে বেইজিং বিলম্ব করেছে। গতকাল এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সোমবার ঠিক এ রকমই অভিযোগ আবার তুলেছেন এক মার্কিন আইনপ্রণেতা।

টেক্সাসের রিপাবলিকান দলীয় আইনপ্রণেতা মাইকেল ম্যাককল করোনা ভাইরাসের উৎস অনুসন্ধানে তদন্ত করছেন। সোমবার মার্কিন সংসদের নিম্নকক্ষে তিনি তার তদন্তের

তৃতীয় কিস্তি প্রতিবেদন আকারে প্রকাশ করেন। তার দাবি, এ ভাইরাসটি জিনগত পরিবর্তিত এবং উহান ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজি থেকেই তা ছড়িয়ে পড়েছিল।

চীন প্রথম থেকেই বলে আসছে, উহানের সামুদ্রিক খাবাবের একটি বাজার থেকে নতুন করোনা ভাইরাস (সার্স-কভ-২) ছড়িয়ে পড়েছিল। বেইজিং মনে করে, প্রথমে কোনো প্রাণী থেকে মানুষে এ ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হয়েছিল।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রথম থেকে চীনের বর্ণনায় বিশ্বাসী ছিল। সংস্থার প্রধানও বারবার বলে এসেছেন, এ ভাইরাস ‘মানবসৃষ্ট’ নয় এবং উহানের গবেষণাগার থেকে তা ছড়ায়নি। পাশাপাশি, করোনার প্রাদুর্ভাব রুখতে চীনের কঠোরনীতির প্রশংসাও প্রকাশ্যে করতে দেখা গেছে টেড্রোস অ্যাডহানম গেব্রিয়েসুসকে। কিন্তু সম্প্রতি তিনি সুর পাল্টেছেন। তিনি এখন মনে করেন, গবেষণাগার থেকে ছড়িয়ে পড়ার ঘটনাকে ‘অত্যন্ত অসম্ভব’ বলে উড়িয়ে দেওয়া বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘অপরিপক্ব সিদ্ধান্ত’ ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট, ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন ক্ষমতায় এসে করোনার উৎস অনুসন্ধানে গতি বাড়াতে সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশ জারির ক’দিন পরই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকেও ইউটার্ন নিতে দেখা গেছে। তারা নতুন করে যে তদন্ত-দল উহানে পাঠাতে চেয়েছে, চীন অবশ্য সাফ জানিয়ে দিয়েছে, এ নিয়ে আর কোনো ভিনদেশি তদন্তের সুযোগ তারা দেবে না।

২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চীন প্রথম বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে জানিয়েছিল, নিউমোনিয়া-সদৃশ নতুন একটি রোগে আক্রান্ত কয়েকজন লোক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। কোভিড-১৯ নাম হলে রোগটি ২০২০ ও ২০২১ সালে ভয়াবহতার ছাপ রেখেছে। করোনা মহামারী নিয়ে তথ্য হালনাগাদকারী সাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, মঙ্গলবার রাত নয়টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত বিশ্বে ১৯ কোটি ৯৮ লাখ ২৬ হাজার ৪৬১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে মারা গেছে ৪২ লাখ ৫৩ হাজার ৬০৭ জন।

advertisement