advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

পরীর বাসার সামনে এসে হাসি ফুটল এমদাদুলের!

জনি রায়হান
৪ আগস্ট ২০২১ ০৬:৪৭ পিএম | আপডেট: ৪ আগস্ট ২০২১ ০৯:৫৯ পিএম
মাস্ক বিক্রেতা এমদাদুল
advertisement

মো. এমদাদুল হক। গ্রামের বাড়ি বরগুনা জেলায়। দুই ছেলে এক মেয়েকে নিয়ে টানাপোড়েনের সংসার। জীবিকা নির্বাহ করতে তাই মাস্ক বিক্রির ব্যবসা শুরু করেছেন তিনি। প্রতিদিন তার টার্গেট থাকে কমপক্ষে ২ শতাধিক মাস্ক বিক্রি করা। আজ বুধবার সারা দিন বনানীর বিভিন্ন সড়কে ঘুরে ঘুরে মাস্ক বিক্রি করেছেন তিনি। কিন্তু, লক্ষ্যমাত্রার বিক্রি না হওয়ায় হতাশায় ছিলেন তিনি।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে একটি ক্যান্টিনের টিভিতে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে তার বনানীর বাসা থেকে আটকের খবর পান এমদাদুল। টেলিভিশনের সংবাদ প্রতিবেদনে দেখেন নায়িকার বাসার সামনেই ভিড় জমিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। সংবাদ দেখেই মাস্কের ব্যাগ হাতে নিয়ে চলে যান পরীর বাসার সামনে। পরের ৩০ মিনিটে বিক্রি হয়ে যায় এমদাদুলের সব মাস্ক। পরে স্ত্রীর মাধ্যমে বাসা থেকে আরও কিছু মাস্ক আনান এমদাদুল। সেগুলোও বিক্রি করছেন সুযোগ বুঝে।

এমদাদুল হক দৈনিক আমাদের সময় অনলাইনকে বলেন, ‘একটা ক্যান্টিনের টিভিতে দেখলাম নায়িকা পরীমনির বাসার সামনে অনেক মানুষ। তারে নাকি আটক করা হইসে। তাই এখানে মাস্ক বেচতে আইছি। এক ব্যাগের সব বেইচা, আরও ৮/১০ প্যাকেট বিক্রি করছি।’

ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনির বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সদস্যরা। আজ বুধবার বিকেল ৪টার দিকে পরীর বাসায় অভিযান শুরু হয়। অভিযানে অংশ নিয়েছে র‍্যাব-১ ও র‍্যাব সদর দপ্তরের একাধিক টিম। অভিযানটি এখনো চলমান রয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পরীমনিকে আটকের খবর পেয়ে তার বাসার সামনে ভিড় জমিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। করোনা পরিস্থিতিতে এমন উৎসুক জনতার ভিড় ঠেকাতে তাই পরীমনির বাসার সামনে মাইকিং করছে বনানী সোসাইটি। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বনানী সোসাইটির ম্যানেজার সৈয়দ মোস্তাক উদ্দিন হ্যান্ড মাইক হাতে নিয়ে প্রচার করতে থাকেন। তিনি উৎসুক জনতার উদ্দেশে বলেন, ‘উপস্থিত সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হচ্ছে। আপনারা অযথা ভিড় করবেন না। সকলে সামাজিক দূরুত্ব বজায় রাখুন। ভয়াবহ করোনা পরিস্তিতে দয়া করে সকলে সর্তক থাকুন। সাংবাদিক ভাইয়েরা ছাড়া অন্য সকল সাধারণ মানুষ দয়া করে এখান থেকে চলে যান।’

এ সময় পুলিশ ও স্থানীয় নিরাপত্তা কর্মীদের বার বার সাধারণ মানুষকে সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করতে দেখা গেছে। কিন্তু শত অনুরোধের ফলেও সরছেন না উৎসাহীরা।

র‍্যাবের পক্ষ থেকে পরিমনিকে আটকের কথা বলা হলেও এখনো বাসা থেকে বের করা হয়নি তাকে। তবে, জানা গেছে পরীমনিকে র‌্যাব সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হবে কিছুক্ষণের মধ্যে। র‍্যাবের বেশির ভাগ সদস্য নায়িকার অ্যাপার্টমেন্টের গ্যারেজে অবস্থান করছেন। পরীর ফ্ল্যাটের মূল দরজা লাগিয়ে দিয়ে ভেতর থেকে বাইরে বা বাইরে থেকে ভেতরে কাউকেই যাতায়াত করতে দেওয়া হচ্ছে না।

এর আগে ফেসবুক লাইভে এসে পরীমনি বলেন, ‘কারা যেন আমার বাসায় ঢোকার চেষ্টা করছে। কেউ কালো কাপড় পরে আছেন, কেউ রঙিন কাপড় পরে আছেন। এরা কারা ভাই? আমি লাইভ কাটছি না।’

পরীমনি বলেন, ‘পুলিশ হলে তো দরজা খুলেই দেব। কিন্তু তারা তো পরিচয় দিচ্ছে না। মেরে ফেললে সবার সামনে মেরে ফেলে যাক। আমি লাইভ কাটব না। সবাই দেখুক। সবাইকে দেখায় দেব, এরা কী কী করে।’

এ সময় পরীর বাসার দরজা ধাক্কার শব্দ পাওয়া যায়। পরীমনি বলেন, ‘ভাই আপনারা কিছু দেখতেসেন না, কিছু বলতেসেন না। আমি যে কী পরিমাণ সিক। তিন দিন ধরে বিছানা থেকে উঠতে পারছি না। আমার পরিচিতরা কী আসবেন? একটু দেখবেন, এরা কারা। লিটারেলি আমার দরজা ভাঙচুর করতেসে।’

advertisement