advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement
advertisement

শাবিপ্রবিতে ছাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগ, উপাচার্য কার্যালয়ে শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০২:৫২ পিএম | আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২২ ০৫:০২ পিএম
দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ছাত্রীরা উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে থেকে সরবেন না বলে জানিয়েছেন। আজ সকালে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে। ছবি : সংগৃহীত
advertisement

সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) একটি আবাসিক হলের প্রাধ্যক্ষ বিরুদ্ধে ছাত্রীদের সঙ্গে অসদাচরণের অভিযোগে উপাচার্যের কার্যালয়ে প্রবেশ করেছে ছাত্রীদের পাঁচজনের একটি প্রতিনিধিদল। আজ শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তারা উপাচার্যের কার্যালয়ে যান।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে হঠাৎ বিভিন্ন দাবিতে উত্তাল হয়ে উঠে শাবিপ্রবি ক্যাম্পাস। এতে বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলনে নেমে উপাচার্য ভবনের সামনে অবস্থান নেয় বেগম সিরাজুন্নেসা চৌধুরী ছাত্রী হলের শিক্ষার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গতকাল রাত ৮টা থেকে বিভিন্ন দাবিতে সিরাজুন্নেসা চৌধুরী হলের শিক্ষার্থীরা জড়ো হয়। পরে বিষয়গুলো হল প্রভোস্টদের অবগত করেন শিক্ষার্থীরা।

ফোন দিলে হল প্রভোস্ট জাফরিন আহমেদ শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘হল থেকে বের হয়ে গেলে বের হয়ে যাও, কোথায় যাবা তোমরা? আমার ঠেকা পড়ে নাই।’ তাই এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া ও দাবি আদায়ে মধ্যরাতে উপাচার্য ভবনের সামনে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের অবস্থান নেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বাসভবনের সামনে গিয়ে ছাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তিনি আজ শুক্রবার সকালে ছাত্রীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিলে দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে বিক্ষোভ স্থগিত করে তারা হলে ফিরে যান।

এ বিষয়ে হল প্রভোস্ট জাফরিন আহমেদ বলেন, ‘এত রাতে হল প্রভোস্টরা আসতে পারছেন না। শিক্ষার্থীদের বলেছি তারা যেন হলে ফিরে যায়। আমরা তাদের সমস্যাগুলো নিয়ে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসবো।’

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে- মেয়েদের হলে ডাবলিং করা যাবে না, হলে গণরুম রাখা যাবে না, হলে গার্ডিয়ানদের প্রবেশ করতে দিতে হবে, হলের গার্ডরা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সুন্দরভাবে ব্যবহার করা, হলের ডায়নিং এর খাবারের দাম কমিয়ে মান বাড়ানো, মেয়েদের নিরাপত্তা জোরদার করা, হলের ইন্টারনেট সমস্যার সমাধান করা এবং প্রভোস্টের পদত্যাগ ও শিক্ষার্থীদের কাছে ক্ষমার দাবি জানানো হয়।

advertisement
advertisement