advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

রাঙ্গাবালীতে ষষ্ঠ শ্রেণির মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
১৪ জানুয়ারি ২০২২ ১০:৩১ পিএম | আপডেট: ১৪ জানুয়ারি ২০২২ ১০:৩৮ পিএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় ষষ্ঠ শ্রেণির এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগে আজ শুক্রবার দুপুরে রাঙ্গাবালী থানায় একটি মামলা করা হয়।

নির্যাতনের শিকার ছাত্রীর বয়স আনুমানিক ১২ বছর। সে রাঙ্গাবালী হামিদিয়া রশিদিয়া মহিলা দাখিল মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। স্থানীয়রা জানায়, ওই ছাত্রী উপজেলার সদর ইউনিয়নের কাছিয়াবুনিয়া গ্রামে তার দাদা বাড়িতে থেকে পড়ালেখা করতো ।

advertisement 3

গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টায় দাদা বাড়ি সংলগ্ন গোমাবুনিয়া খালের পাড় থেকে গৃহপালিত ছাগল ও ভেড়া আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হয় ওই মাদ্রাসা ছাত্রী। ঘটনার পর রাতেই রাঙ্গাবালী থানায় গিয়ে মৌখিক অভিযোগ করা হয়। পরে আজ শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের হয়।

advertisement 4

নির্যাতনের শিকার শিশুটির দাদা বাদী হয়ে একজনকে অভিযুক্ত করে মামলাটি করেন। অভিযুক্ত ওই ব্যক্তির নাম আবু সালেহ মিস্ত্রী (৩৮)। তিনি কাছিয়াবুনিয়া গ্রামের মৃত ইদ্রিস হাওলাদারের ছেলে। তবে এখনও তিনি গ্রেপ্তার হননি। পুলিশ জানায়, তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এদিকে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ।

নির্যাতনের শিকার মাদ্রাসাছাত্রীর দাদার অভিযোগ, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় খাল পাড় থেকে নিজেদের  ছাগল ও ভেড়া আনতে গিয়েছিল তার নাতনি। এসময় জোরপূর্বক তাকে টেনে হিচড়ে খালের কিনারায় নিয়ে ধর্ষণ করে আবু সালেহ। হাতেনাতে কয়েকজন তাকে ধরলেও তাদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে পালিয়ে যায় সে। ওই ছাত্রীর পরিবারের লোকজনের দাবি, জড়িত ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হোক।

এদিকে অভিযুক্ত ব্যক্তির পরিবারের লোকজন বলছেন, জমিজমা বিরোধের জেরে এবং স্থানীয় কিছু লোকের প্ররোচণায় আবু সালেহকে ফাঁসানো হয়েছে।  

এ ব্যাপারে রাঙ্গাবালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেওয়ান জগলুল হাসান বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টার দিকের এ ঘটনায় মামলা হয়েছে। আসামি গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

advertisement