advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

রোগীর রক্ত নিয়ে রিপোর্ট বাবদ টাকা দাবি, দুই ভুয়া চিকিৎসক গ্রেপ্তার

রাজশাহী ব্যুরো
১৯ জানুয়ারি ২০২২ ১২:১৬ এএম | আপডেট: ১৯ জানুয়ারি ২০২২ ১২:১৬ এএম
গ্রেপ্তার হওয়া সালমান শরিফ বাবু ও জাহিদুল ইসলাম জাহিদ। ছবি : আমাদের সময়
advertisement

রাজশাহীতে রক্ত পরীক্ষার নামে রোগীর আত্মীয়কে মারপিট ও আটক রেখে জোরপূর্বক টাকা আদায় এবং নির্যাতনের অভিযোগে দুই ভুয়া চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর লহ্মীপুর মোড়ে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- নগরীর কেশবপুরের সালমান শরিফ বাবু (৩৫) ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ গোমস্তাপুরের মকরমপুরের জাহিদুল ইসলাম জাহিদ (৩৭)। জাহিদ নগরীর লহ্মীপুর কাঁচাবাজার এলাকার বাসিন্দা।

পুলিশ সূত্র জানায়, নওগাঁ জেলার আত্রাইয়ের মাধবপুরে সিরাজুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত সোমবার রাত ১০ টায় শরিফ বাবু নিজেকে চিকিৎসক পরিচয় দিয়ে সেই ওয়ার্ডে ভর্তি সিরাজুল ইসলামের শরীর থেকে রক্ত নেন। একই সঙ্গে আরও কয়েকজন রোগীর শরীর থেকে রক্ত নেন। হাসপাতালের প্রকৃত চিকিৎসকরা মনে করে তারা রক্ত দেয়। রক্ত সংগ্রহের পর শরিফ রোগীর ছেলে সুমনকে ১ ঘণ্টা পরে রাজশাহী ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে পরীক্ষার রিপোট সংগ্রহ করার জন্য বলেন। সুমন আলী রাত ১১টায় রাজশাহী ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তার বাবার পরীক্ষার রিপোর্ট চাইতে গেলে শরিফ ও জাহিদ তার কাছে রিপোর্ট বাবদ ৪ হাজার টাকা দাবি করেন।

সুমন জানান, রামেকের সরকারি চিকিৎসক ভেবে তারা পরীক্ষা করার জন্য রক্ত দিয়েছে। এতো টাকা দেওয়ার তাদের সামর্থ্য নেই। তাই তিনি তার বাবার কাগজ ফেরত চাইলে শরিফ ও জাহিদসহ কয়েকজন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে তাকে আটক রেখে মারপিট করেন। এ সময় সুমনের থেকে ৪ হাজার ৫০ টাকা জোর করে কেড়ে নেন।

এ বিষয়ে রাজপাড়া থানার ওসি মাজহারুল ইসলাম জানান, ভুক্তভোগী সুমনের অভিযোগে নরগীর রাজপাড়া থানায় একটি নিয়মিত মামলা হয়। পরবর্তীতে নগরীর লহ্মীপুর মোড়ে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে। এ ছাড়া তাদের সহযোগী অজ্ঞাত আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।