advertisement
advertisement
advertisement
DBBL
advertisement

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে ৯ জেব্রার মৃত্যু, কারণ মারামারি ও ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ

গাজীপুর সদর প্রতিনিধি
২৫ জানুয়ারি ২০২২ ১০:১৮ পিএম | আপডেট: ২৫ জানুয়ারি ২০২২ ১০:২০ পিএম
পুরোনো ছবি
advertisement

গাজীপুরের শ্রীপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে চলতি মাসে ধারাবাহিকভাবে ৯টি জেব্রার মৃত্যু হয়েছে। এসব জেব্রার মধ্যে চারটি মারামারি করে এবং পাঁচটি ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে মারা গেছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

মৃত্যুর কারণ উদ্ঘাটনে আজ মঙ্গলবার বিকেলে প্রাণিবিশেষজ্ঞ ও গবেষক দলের মধ্যে বৈঠক শেষে এ কথা জানানো হয়।সাফারি পার্কের ঐরাবতি বিশ্রামাগারে এ বৈঠক হয়।

গত ২ জানুয়ারি থেকে গতকাল সোমবার পর্যন্ত এ পার্কে ৯টি জেব্রার মৃত্যু হয়। নেতিবাচক পরিস্থিতির কথা ভেবে পার্ক কর্তৃপক্ষ তা জনসম্মুখে প্রকাশ করেনি। ৯টির জেব্রার মৃত্যুর পর এখন পার্কে জেব্রার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২০টিতে।

জেব্রাগুলোর মৃত্যুর পর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার উপস্থিতিতে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। পরে বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের নমুনা ঢাকার মাননিয়ন্ত্রণ গবেষণাগার এবং ময়মনসিংহের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাগারে পাঠানো হয়েছিল। ইতিমধ্যে এর রিপোর্ট এসেছে। বিশেষজ্ঞরা এসব রিপোর্টের আলোকে মৃত্যুর সঠিক কারণ ব্যাখ্যা করেন।

বিশেষজ্ঞ দলে ছিলেন জাতীয় চিড়িয়াখানার সাবেক কিউরেটর ডা. এ বিএম শহীদ উল্লাহ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যাথলজি অনুষদের অধ্যাপক ড. আবু হাদী নুর আলী খান, ভেটেরিনারি অনুষদের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ড. রফিকুল আলম, ফার্মাকোলজি বিভাগের অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম, গাজীপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এসএম উকিল উদ্দিন ও সাফারি পার্কের ভেটেরিনারি কর্মকর্তা ডা. হাতেম সাজ্জাত জুলকারনাইন।

অধ্যাপক ড. রফিকুল আলম বলেন, এসব প্রাণীর মৃতদেহে পাঁচ ধরনের ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। তবে কোনো ভাইরাসের দেখা মেলেনি। ব্যাকটিরিয়াগুলো হলো- স্টেপটোকোক্কাস,পাস্টোরেলা, সালমোনিলা, ইকোলাই, ক্লোসটেডিয়াম। মারা যাওয়া জেব্রাগুলো কোনো না কোনোভাবে এসব ব্যাকটেরিয়ায় সংক্রমিত হয়েছে। যেহেতু উন্মুক্ত অবস্থায় এসব প্রাণী বিচরণ করে থাকে।

ডা. এ বিএম শহীদ উল্লাহ বলেন, মানিকগঞ্জ থেকে ঘাস এনে জেব্রার খাবার হিসেবে সরবরাহ করা হয়। সেখানকার ঘাসও পরীক্ষা করে তেমন কিছু পাওয়া যায়নি। তাই বর্তমানে অবশিষ্ট যে প্রাণীগুলো সাফারি পার্কে রয়েছে তাদের সুস্থতায় বেশ কিছু পর্যবেক্ষণ দেওয়া হয়েছে। আমরা আশা করছি বাকি প্রাণীগুলোকে টিকিয়ে রাখতে পারব।

সাফারি পার্কের প্রকল্প পরিচালক জাহিদুল কবির বলেন, হঠাৎ করেই প্রাণীগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে। মারা যাওয়া জেব্রাগুলোর সিংহভাগই মাদি।

সাফারি পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তবিবুর রহমান বলেন, এখানে আমাদের কারো কোনো ধরনের গাফিলতি ছিল না।