advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

ভারতের গম রপ্তানি বন্ধে প্রভাব পড়বে না

সাধনচন্দ্র মজুমদার, খাদ্যমন্ত্রী

সিলেট প্রতিনিধি
১৬ মে ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৬ মে ২০২২ ০১:১১ এএম
advertisement

ভারত গম রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্তে বাংলাদেশে তেমন কোনো প্রভাব পড়বে না বলে মনে করছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র মজুমদার। সিলেট সদর খাদ্যগুদাম পরিদর্শন শেষে গতকাল রবিবার দুপুরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেছেন, ‘ভারত সরকারিভাবে গম রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেনি। বেসরকারিভাবে

advertisement

রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। তবে তারা রপ্তানি বন্ধ করলেও তাতে বাংলাদেশের ওপর তেমন কোনো প্রভাব পড়বে না।’

খাদ্যমন্ত্রী সাধনচন্দ্র বলেন, ‘গত এক বছরে আমরা বিদেশ থেকে কোনো চাল আমদানি করিনি। আমাদের কৃষকদের উৎপাদিত ধান দিয়েই চালের চাহিদা মিটছে। তবে গম আমাদের দেশে তেমন হয় না, বিদেশ থেকেই আমদানি করতে হয়। গম আমদানি করা হতো ইউক্রেন ও রাশিয়া থেকে। কিন্তু এ দুই দেশের যুদ্ধের সময়ে আমরা সম্প্রতি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে ৩ লাখ মেট্রিক টন গম আমদানি করেছি। পরে যা দরকার তাও ভারত থেকে আমদানি করা হবে।’

বোরো ফসলের আবাদ থেকে ধান-চালের ভালো মজুদের প্রত্যাশা করে দেশে কোনোভাবেই খাদ্য সংকট হবে না বলেও মনে করেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সুনামগঞ্জে সম্প্রতি বোরো ফসলের কিছু ক্ষয়ক্ষতি হলেও চাষাবাদ হয়েছে অনেক বেশি। এ থেকে ধান-চালের শক্তিশালী একটি মজুদ গড়ে উঠবে। এ ছাড়াও গত আউশ ও আমন ধানেরও প্রচুর মজুদ রয়েছে এবং বৃষ্টির কারণে আগামী আউশ ফসলও ভালো হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই দেশে কোনোভাবেই খাদ্য সংকট তৈরি হবে না।’

কৃষকের কাছ থেকে ধান কেনায় সরকারি দামের বিষয়ে খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার বিভিন্নভাবে ভর্তুকি দিয়ে কৃষকদের সাহয্য করে এবং তাদের কাছ থেকে ঘোষণা দিয়ে দাম নির্ধারণ করে ধান কেনে। কৃষকরা যাতে বাজারে অন্যের কাছে ধান বিক্রি করে না ঠকে, তাই এমনটি করা হয়। এবার ধানের যে দাম নির্ধারণ করা হয়েছে তা আর বাড়ানো হবে না।’ সিলেটে ধান-চাল সংরক্ষণের জন্য ২৫ হাজার মেট্রিক টন ধারণক্ষমতাসম্পন্ন সাইলো নির্মাণে সরকারের পরিকল্পনা রয়েছে বলেও জানান খাদ্যমন্ত্রী। সেই সঙ্গে সরকার আমদানির চেষ্টা চালাচ্ছে জানিয়ে ভবিষ্যতে আর পেঁয়াজের দাম বাড়বে না বলে জানান তিনি।

advertisement