advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

পার্কিনসন্স রোগের চিকিৎসায় আশার আলো

অধ্যাপক ডা. এম.এস. জহিরুল হক চৌধুরী
৮ আগস্ট ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ৮ আগস্ট ২০২২ ০৯:৩২ এএম
advertisement

পার্কিনসন্স রোগের চিকিৎসায় আশার আলো দেখতে পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। এজন্য সচেতনতা প্রয়োজন- বলেছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। ফোটোলিয়া পার্কিনসন্স রোগের কারণে স্নায়ুকোষে যেসব ক্ষতি হয়, সেগুলো সারিয়ে তুলতে স্টেম সেল থেকে উৎপাদিত নতুন ডোপামিন কোষ ব্যবহার করা যেতে পারে। সুইডেনের একদল বিজ্ঞানী ইঁদুরের ওপর গবেষণা চালিয়ে এ কথা জানিয়েছেন। তাদের এ গবেষণা পার্কিনসন্স রোগের কার্যকর চিকিৎসাপদ্ধতি উদ্ভাবনে একটি ‘বড় অগ্রগতি’ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

বিজ্ঞানীদের আশা, অদূর ভবিষ্যতে স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে মানুষের পার্কিনসন্স রোগের চিকিৎসা করা সম্ভব হবে। রোগটি সম্পূর্ণ নিরাময় করার চিকিৎসা এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। ওষুধ প্রয়োগ করা এবং মস্তিষ্কে উদ্দীপনা তৈরির মধ্য দিয়ে সাময়িক উপশম করা যায়। মস্তিষ্কে স্নায়ুকোষ কমে যাওয়ায় পার্কিনসন্স রোগ হয়ে থাকে। স্নায়ুকোষগুলো ডোপামিন নামক একধরনের জৈব রাসায়নিক পদার্থ উৎপাদন করে, যা মানুষের মন-মেজাজ ও নড়াচড়া নিয়ন্ত্রণ করে। সুইডেনের ওই গবেষকরা পার্কিনসন্স রোগের মাত্রা বৃদ্ধি করতে ইঁদুরের মস্তিষ্কের একপাশের ডোপামিন উৎপাদনকারী স্নায়ুকোষগুলো মেরে ফেলেন। তারপর তারা মানবদেহ থেকে সংগৃহীত আদি বা ভ্রƒণ স্টেম সেল ডোপামিন উৎপাদনকারী স্নায়ুকোষে রূপান্তর করেন। ইঁদুরের মস্তিষ্কে সেগুলো প্রবেশ করিয়ে (ইনজেক্ট) দেখেন, পার্কিনসন্সের প্রভাবে সৃষ্ট ক্ষতিগুলো সারিয়ে তোলা সম্ভব হচ্ছে। তবে যুক্তরাজ্যের পার্কিনসন্স বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের ওপর এ চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগের আগে আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও যাচাই-বাছাই করা প্রয়োজন। লান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এবারের দিবসলগ্নে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, স্টেম সেল থেকে তৈরি মস্তিষ্ককোষের বিকাশ গবেষণায় একটি বড় অগ্রগতির পরিপ্রেক্ষিতে এ রোগে আক্রান্ত মানুষের চিকিৎসায় স্টেম সেল প্রতিস্থাপনের গবেষণার পথ সুগম হয়েছে। স্টেম সেল থেকে তৈরি স্নায়ুকোষ এখন পর্যন্ত মানবচিকিৎসায় প্রয়োগ করা হয়নি।

advertisement

তবে গবেষকরা বলছেন, ২০১৭ খ্রিস্টাব্দেই তারা এ সংক্রান্ত প্রস্তুতি সম্পন্ন করে রেখেছিলেন। লান্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড রিজেনারেটিভ নিউরোবায়োলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মালিন পারমার বলেন, পার্কিনসন্স রোগের পরীক্ষামূলক চিকিৎসায় স্টেম সেল প্রয়োগের ব্যাপারে অগ্রসর হওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে।

advertisement 4

চিকিৎসাপদ্ধতি : সীমিতসংখ্যক রোগীর ওপর যে চিকিৎসাপদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়েছে, তাতে মস্তিষ্ক রোগমুক্ত করতে একাধিকবার অপসারিত ভ্রƒণকোষ থেকে টিস্যু সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষামূলক একাধিক চিকিৎসায় মিশ্র ফলাফল পাওয়ায় সেগুলো বর্জন করা হয়। তবে এক-তৃতীয়াংশ রোগীর মস্তিষ্কের ভ্রƒণকোষ ২৫ বছর পর্যন্ত সক্রিয় ছিল। ভ্রƒণের স্টেম সেল ব্যবহার করার ব্যাপারে বাড়তি আগ্রহের কারণ হচ্ছে, প্রতিস্থাপনের জন্য এগুলো গবেষণাগারে ব্যাপকহারে উৎপাদন করা যায়। স্টেম সেলের উৎস হিসেবে এগুলো ব্যবহার করলেও নৈতিকতা লঙ্ঘনের অভিযোগও পরিপূর্ণ কোষ ব্যবহারের তুলনায় কম আনা হয়। তবে যুক্তরাজ্যের গবেষকরা মনে করেন, মানুষের চিকিৎসায় স্টেম সেল ব্যবহারের জন্য আরও দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হবে। দাতব্য প্রতিষ্ঠান পার্কিনসন্স ইউকের গবেষণা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক আর্থার রোচ বলেন, সুইডেনের ওই গবেষণাটি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি ভবিষ্যতে পার্কিনসন্স রোগের চিকিৎসায় স্টেম সেল ব্যবহারের ধরন কেমন হতে পারে, সে ব্যাপারে ইঙ্গিত দেয়।

যে বয়সে রোগটি বেশি হয় : গড়ে ৬০ বছর বয়সী ব্যক্তির মধ্যে পার্কিনসন্স রোগ দেখা দিতে পারে। তবে ১০ শতাংশ রোগীর মধ্যে ৪০ বছর বয়সেই উপসর্গ পাওয়া যেতে পারে। আশার কথা, মনোবল শক্ত রেখে রোগীর পরিবার যেন তার প্রতি যত্নশীল হয়ে ওঠে। রোগীকে সবসময় ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করে যেতে হবে। তাকে সঙ্গ দিতে হবে। দুশ্চিন্তা, দুঃখ বা দুঃসংবাদ দেওয়া যাবে না। কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে নিজেকে দূরে রাখতে হবে। খাবার খেতে হবে পুষ্টিকর। শরীরের অন্যান্য রোগ, যেমন- ডায়াবেটিস, থাইরয়েড থাকলে তা নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

সূত্র : রিয়া নভোস্তি

লেখক : অধ্যাপক, ক্লিনিক্যাল নিউরোলজি বিভাগ

ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতাল, শেরেবাংলানগর, ঢাকা

চেম্বার : পপুলার ডায়াগনিস্ট সেন্টার লি.

শ্যামলী শাখা, ঢাকা

০১৮৬৫৪৪৪৩৮৬; ০১৮৬৫৪৪৪৩৮৫

advertisement