advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

আ.লীগের দুই পক্ষে সংঘর্ষ, নিহত ১

শরীয়তপুর প্রতিনিধি
৯ আগস্ট ২০২২ ০৭:৫৭ পিএম | আপডেট: ৯ আগস্ট ২০২২ ১০:০৫ পিএম
নিহত অহিদ খান। পুরোনো ছবি
advertisement

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুর সদর উপজেলার চিকন্দী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে অহিদ খান (৩০) নামে এক যুবক নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। এ সময় ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। বর্তমানে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, অনেকদিন ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে চিকন্দী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, যুবলীগের সভাপতি আক্তারউজ্জামান খান ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হোসেন খানের সঙ্গে সাবেক যুবলীগ নেতা মুদাচ্ছের বিরোধ চলে আসছিল।

advertisement 3

এ ধারাবাহিকতায় আজ মঙ্গলবার দুপুরে চিকন্দী আবুরা ব্রিজ এলাকায় দুই পক্ষের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে মুদাচ্ছের ছোট ভাই অহিদ খান গুরুতর আহত হয়। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ সময় দুই পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়। কয়েকজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। বাকিরা শরীয়তপুর সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

advertisement 4

এ ব্যাপারে মুদাচ্ছের খান বলেন, ‘আক্তার খান ও ফরহাদ খানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আমার ছোট ভাই অহিদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। আমাদের লোকজনকে হামলা করেছে, বোমা নিক্ষেপ করেছে। আমার ভাইয়ের হত্যার বিচার চাই। আক্তার-ফরহাদের ফাঁসি চাই।’

যুবলীগের সভাপতি আক্তারউজ্জামান খান বলেন, ‘আমি নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছি। আমার মেয়ের বিয়েতে আমি সবাইকে দাওয়াত দিয়েছি। আমি কোনো গ্রুপিংয়ের মধ্যে নাই।’

এ ব্যাপারে পালং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আকতার হোসেন বলেন, এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে। বর্তমানে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। দোষীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।

advertisement