advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

চোখ হারাতে পারেন সালমান রুশদি

নিউইয়র্কে হামলা

আমাদের সময় ডেস্ক
১৪ আগস্ট ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ১৪ আগস্ট ২০২২ ১২:১৫ এএম
advertisement

ভারতীয় বংশোদ্ভূত বুকারজয়ী বিতর্কিত লেখক সালমান রুশদি হামলায় মারাত্মক আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ভেন্টিলেটরের মাধ্যমে শ^াস-প্রশ^াস নিচ্ছেন। কথা বলতে পারছেন না। হামলায় তিনি একটি চোখ হারাতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। রুশদির এজেন্ট অ্যান্ড্রু ওয়াইলি সংবাদমাধ্যমকে এসব তথ্য জানিয়েছেন। খবর বিবিসি।

খুনের হুমকিতে থাকা রুশদি ১৯৮৮ সাল থেকে পুলিশি নিরাপত্তার অধীনে বসবাস করে আসছেন। গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে একটি সাহিত্যবিষয়ক অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেওয়ার সময় একজন তার ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়।

advertisement

খবরে বলা হয়, রুশদির ঘাড়ে ও পেটে অন্তত একটি ছুরিকাঘাত করা হয়েছে; তার লিভার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। রুশদির এজেন্ট এক ই-মেইলে জানানÑ সালমান হয়তো একটি চোখ হারাবেন, তার হাতের স্নায়ু ছিঁড়ে গেছে এবং তার লিভার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঘটনার দিন হামলার পর হেলিকপ্টারে রুশদিকে পেনসেলভেনিয়ার ইরি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কয়েক ঘণ্টা অস্ত্রোপচারের পর গত শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে তাকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়।

advertisement 4

এদিকে রুশদির ওপর হামলাকারী সম্পর্কে তথ্য প্রকাশ করেছে মার্কিন পুলিশ। পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী হামলাকারীর নাম হাদি মাতার। তাকে আটক করা হয়েছে। হাদি যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সির বাসিন্দা, বয়স ২৪। পুলিশের ধারণা, হাদি একাই এ হামলা চালিয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তৎপরতা পর্যবেক্ষণ করে পুলিশ ধারণা করছেÑ হাদি কট্টরপন্থি শিয়াদের প্রতি অনুগত এবং ইরানের ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ডের (আইআরজিসি) প্রতিও সহানুভূতিশীল। কিন্তু আইআরজিসির সঙ্গে হাতির সরাসরি কোনো সংযোগ এখনো পাওয়া যায়নি। তবে মার্কিন বাহিনীর হাতে খুন হওয়া ইরানের শীর্ষ কমান্ডার কাসেম সোলাইমানির ছবি পাওয়া গেছে হাতির মোবাইলে। প্রসঙ্গত, মার্কিন ড্রোন হামলায় ২০২০ সালে ইরাকে নিহত হন কাসেম সোলাইমানি।

হামলার সময় মঞ্চে থাকা অনুষ্ঠানের সঞ্চালক হেনরি রিজও মাথায় আঘাত পেয়েছেন। তবে তার আঘাত গুরুতর নয়। হুমকির মুখে নির্বাসি লেখকদের আশ্রয় ও সহায়তা দিয়ে থাকে এমন একটি অলাভজনক সংস্থার সহপ্রতিষ্ঠাতা হেনরি রিজ।

স্থানীয় বাফেলো নিউজের এক সাংবাদিক জানিয়েছেন, কালো মাস্ক পরা ওই হামলাকারী দর্শক সারি থেকেই উঠে গিয়েই রুশদির ওপর আচমকা হামলা করেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে ওই হামলাকারী। এক প্রত্যক্ষদর্শীর ভাষ্য অনুযায়ী মাত্র ২০ সেকেন্ডের মধ্যেই রুশদিকে ১০ থেকে ১৫ বার কোপানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীনতার কিছু দিন আগে মুম্বাইয়ে এক কাশ্মীরি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন রুশদি। প্রথম বই সাড়া না ফেললেও ১৯৮১ সালে তার দ্বিতীয় বই ‘মিডনাইট চিলড্রেন’ তাকে আন্তর্জাতিক খ্যাতি এনে দেয়। এর পর ১৯৮৮ সালে তার চতুর্থ বই ‘সেটানিক ভার্সেস’ নিয়ে গোটা মুসলিম বিশ^ ক্ষুব্ধ হয়। তাদের দাবিÑ ওই বইয়ে ইসলামকে মারাত্মকভাবে হেয়-প্রতিপন্ন করা হয়েছে। এ নিয়ে বিতর্কের জের ধরে সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন নিহত হন। বইটি বহু দেশ নিষিদ্ধ করেছে। বইটি প্রথম নিষিদ্ধ করে ভারত, সেই একই পথ অনুসরণ করে পাকিস্তান। সে সময় ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি রুশদির মৃত্যুদ-ের ফতোয়া জারি করেন। এ লোকের মাথার দাম ঘোষণা করা হয় ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। ইরানের সেই ঘোষণা এখনো বহাল আছে।

advertisement