advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যে কাজ বিনা হিসাবে জান্নাতে নিয়ে যায়

ধর্ম ডেস্ক
১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৭:০৬ পিএম | আপডেট: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৭:০৬ পিএম
প্রতীকী ছবি
advertisement

একটি দলের সত্তর হাজার লোক বিনা হিসাবে ও বিনা শাস্তিতে জান্নাতে যাবেন বলে রাসূল (সা.) হাদিসে উল্লেখ করেছেন। কী কাজের জন্য তারা জান্নাতে যাবেন, তাও বলে গেছেন তিনি।  

ইবনুল আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, আমার কাছে (স্বপ্নে অথবা মিরাজে) উম্মাতদের পেশ করা হলো। আমি একজন নবীকে একটি ছোট দলসহ দেখলাম, আরেকজন নবীকে একজন-দুজন লোকসহ দেখলাম, আর এক নবীকে দেখলাম যে, তার সঙ্গে কেউ নেই। হঠাৎ করে আমাকে বিরাট একটি দল দেখানো হলো। আমি ভাবলাম, এরা আমার উম্মত। আমাকে বলা হলো, এরা মূসা (আ.) ও তার উম্মত। তবে আপনি আসমানের দিগন্তে তাকিয়ে দেখুন। আমি দেখলাম, সেখানে বিরাট একটি দল। আবার আমাকে আসমানের অন্য দিগন্তে তাকিয়ে দেখতে বলা হলো। আমি দেখলাম, সেখানেও বিরাট দল। তারপর আমাকে বলা হলো, এসব আপনার উম্মত। আর তাদের মধ্য থেকে সত্তর হাজার লোক বিনা হিসাবে ও বিনা শাস্তিতে জান্নাতে যাবে।

advertisement 3

ইবনুল আব্বাস (রা.) বলেন, তারপর রাসূল (সা.) সেখান থেকে উঠে তার হুজরায় গেলেন। এ সময় সাহাবীরা ওই সব লোকের বিষয়ে আলোচনা করছিলেন যারা বিনা হিসাবে ও বিনা শাস্তিতে জান্নাতে যাবেন।

advertisement 4

কেউ বলেন, বোধহয় তারা ওই সব লোক, যারা রাসূল (সা.)-এর সাহচর্য লাভ করেছেন। কেউ বলেন, মনে হয় তারা ইসলাম-যুগের জন্মগ্রহণকারী ওই সব লোক, যারা আল্লাহর পথে কোনো কিছুকে শরীর করেননি। এভাবে সাহাবীগণ বিভিন্ন কথা বলাবলি করছিলেন।

রাসূল (সা.) বের হয়ে এসে বলেন, তারা হচ্ছে ওই সব লোক যারা তাবীজ-তুমারের কারবার করে না এবং করায়ও না। আর তারা কোনো কিছুকে শুভ ও অশুভ লক্ষণ হিসেবে গ্রহণ করে না এবং তারা একমাত্র তাদের প্রভু আল্লাহর ওপরই তাওয়াক্কুল করে।

উক্কাশা ইবনে মিহসান (রা.) দাঁড়িয়ে বলেন, আপনি আল্লাহর কাছে দোয়া করুন যাতে তিনি আমাকে তাদের অন্তর্ভুক্ত করেন। তিনি বলেন, তুমি তাদের অন্তর্ভুক্ত। তারপর আরেকজন উঠে বলেন, আল্লাহর কাছে দোয়া করুন যাতে আমাকেও তিনি তাদের মধ্যে গণ্য করেন। রাসূল (সা.) বলেন উক্কাশা তোমার অগ্রবর্তী হয়ে গেছে। (বুখারী ও মুসলিম)

advertisement