advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

নোবিপ্রবির প্রশাসনিক ভবন যেন এক মৃত্যুপুরী

আবদুল্লাহ আল নোমান,নোবিপ্রবি
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৬:১২ পিএম | আপডেট: ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ ০৭:১৫ পিএম
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) প্রশাসনিক ভবনে একাধিক ফাটল
advertisement

নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) প্রশাসনিক ভবনে একাধিক ফাটল দেখা গিয়েছে। ফলে কিছুটা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় চলছে প্রশাসনিক ও পাঠদানসহ সব কার্যক্রম।

দীর্ঘদিন ধরে দ্বিতীয় ও চতুর্থ তলার ছাদ থেকে খসে পড়ছে ইট ও সিমেন্টের আস্তরণ। ফলে শঙ্কায় আছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

advertisement 3

সরেজমিনে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনের পাঁচ তলা প্রশাসনিক ভবনের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় ফাটল দেখা গেছে। সামনের দিকের অধিকাংশ স্থান ছোট ফাটলে ছেয়ে গেছে। এ ছাড়া ভবনের দ্বিতীয় ও চতুর্থ তলায় ফাটলের ফলে ভেতর থেকে রড বেরিয়ে এসেছে। যেকোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা।

advertisement 4

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি বিভাগের বিভিন্ন ব্যাচের প্রায় ৭৫০ জন শিক্ষার্থী শিডিউল অনুযায়ী প্রশাসনিক ভবনে ক্লাস করে থাকেন। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালিত হয় এই ভবন থেকে। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষসহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রায় ৫০০ কর্মকর্তা-কর্মচারী এ ভবনে প্রতিদিন অবস্থান করে তাদের কাজ পরিচালনা করেন।

বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী আক্তারুজ্জামান সবুজ বলেন, ‘রুম সংকট থাকায় আমাদের অনেক ডিপার্টমেন্টের ক্লাস করতে হয় এই ভবনে। ইতোমধ্যে ভবনে ঘটে যাওয়া অগ্নিকাণ্ডে শিক্ষার্থীরা এমনিতেই শঙ্কিত, এখন আবার ফাটল দেখা দিয়েছে ‘

প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুল কাদির উষাণ জানান, প্রশাসনিক ভবনের নিচে দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে শিক্ষার্থীরা সর্বদা আতঙ্কিত থাকেন। বড় ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে এটির সমাধান দরকার।

সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ফেরদৌস ইকবাল বলেন, ‘প্রশাসনিক ভবনের দ্বিতীয় এবং চতুর্থ তলায় ফাটল ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ভবনটিও ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকায় জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে আমরা শঙ্কিত।’

উন্নয়ন ও পরিকল্পনা পরিচালক প্রকৌশলী জামাল হোসাইন বলেন, ‘ফাটলটি আমরা দেখিনি, আপনার মাধ্যমে জানলাম। আমরা দ্রুতই এর সমাধান করবো।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর বলেন, ‘ইঞ্জিনিয়ারিং দপ্তরকে জানিয়েছি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড.আব্দুল বাকি বলেন, ‘এটির দ্রুত সমাধান করতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং দপ্তরকে জানাবো।’

advertisement