advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে চিনি ও পাম তেল

নিজস্ব প্রতিবেদক
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম | আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১২:১৯ এএম
পুরোনো ছবি
advertisement

বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার পাম তেল ও চিনির দাম বেঁধে দিয়েছে, যা গতকাল রোববার থেকে কার্যকর হওয়ার কথা। অথচ বাজারে তার প্রভাব পড়েনি। পণ্য দুটি কিনতে গতকালও ভোক্তাকে বাড়তি টাকা গুনতে হয়েছে।

গতকাল রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, পাম তেল ও চিনি আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি খোলা চিনি ৯০ টাকা এবং প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নির্ধারিত দামের চেয়ে যা ৬ টাকা বেশি। অপরদিকে নির্ধারিত দামের চেয়ে ২ থেকে ৫ টাকা বেশি দামে

advertisement

বিক্রি হচ্ছে পাম তেল। খুচরায় প্রতি লিটার পাম তেল বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে ১৩৮ টাকা পর্যন্ত।

advertisement 4

গত ২২ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে প্রতি কেজি খোলা চিনি সর্বোচ্চ ৮৪ টাকা, প্যাকেটজাত চিনি ৮৯ টাকা এবং প্রতি লিটার পাম তেলের দাম ১৩৩ টাকা নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যের পাশাপাশি এসব পণ্যের মিলগেটের মূল্য ও পরিবেশক মূল্যও নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। যা রবিবার থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু গতকালের বাজার চিত্র বলছে পণ্য দুটির দামে হেরফের হয়নি। আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, দাম বেঁধে দিলেও বাজারে তার প্রভাব নেই। পাইকারিতে এখনো বাড়তি দামে কিনতে হচ্ছে। তাই খুচরায় দাম আগের মতোই বাড়তি। অপরদিকে পাইকারি বিক্রেতারা বলছেন, আজ (রবিবার) থেকে নতুন দাম কার্যকর হওয়ার কথা থাকলেও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানে এ দামে চিনি কিংবা তেল বিক্রি হচ্ছে না। নতুন দামে পণ্য বিক্রি হতে আরও কিছুদিন সময় লাগবে।

মালিবাগ বাজারের খুচরা বিক্রেতা মো. সোলায়মান বলেন, পাইকারি ও খুচরায় চিনির দামে কোনো পরিবর্তন হয়নি। আগের মতোই প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা এবং খোলা চিনি ৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রায় দেড় মাস ধরে এ দামেই বিক্রি হচ্ছে।

কদমতলী এলাকার সাদ্দাম মার্কেটের খুচরা বিক্রেতা মো. মিলন হোসেন বলেন, খোলা চিনির বস্তায় এখনো ৫০ থেকে ১০০ টাকা বাড়তি রয়েছে। আমাদের কেনাই পড়েছে ৮৬ টাকা কেজি। ৪ হাজার ২০০ টাকার নিচে বস্তা মিলছে না। সরকারের বেঁধে দেওয়া দাম কার্যকর হতে আরও সপ্তাহখানেক সময় লাগবে।

একই বাজারের খোলা তেল বিক্রেতা মো. নূর ইসলাম বলেন, পাম তেলের দাম কমতির দিকে রয়েছে। তবে সরকারের বেঁধে দেওয়া দামে বিক্রি হতে আরও সময় লাগবে। প্রতি লিটার ভালো পাম তেল এখন বিক্রি হচ্ছে ১৩৫ থেকে সর্বোচ্চ ১৩৮ টাকা পর্যন্ত। ১২৬ টাকাতেও পাওয়া যায়। তবে সেটা একেবারেই সাধারণ মানের।

এ বাজারের পাইকারি বিক্রেতা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, চিনির দাম এখনো কমেনি। তবে পাম তেলের দাম কমতে শুরু করেছে। বেঁধে দেওয়া দামে বিক্রি হতে আরও সময় লাগবে।

এদিকে সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) গতকালের বাজার প্রতিবেদনেও উঠে এসেছে একই চিত্র। সংস্থাটির পর্যবেক্ষণ বলছে, গতকাল পাম তেল আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হয়েছে। টিসিবির তথ্যে উল্লেখ করা হয়েছে, এদিন প্রতি লিটার খোলা পাম তেল ১২৬ থেকে ১৩৫ টাকা এবং পাম সুপার ১৪৫ থেকে ১৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। টিসিবি আরও উল্লেখ করেছে, গতকাল প্রতি কেজি খোলা চিনি ৮৮ থেকে ৯০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।

অথচ নতুন দাম অনুযায়ী প্রতি লিটার পাম সুপার খোলা তেল মিলগেট থেকে ১২৮ টাকায় কিনে পরিবেশকদের ১৩০ টাকায় বিক্রি করার কথা। যা খুচরা পর্যায়ে বিক্রি হবে ১৩৩ টাকায়। অপরদিকে প্রতি কেজি খোলা চিনি মিলগেটে ৭৯ টাকায় কিনে পরিবেশক পর্যায়ে ৮১ টাকা এবং খুচরা বিক্রি হওয়ার কথা ৮৪ টাকায়। প্যাকেটজাত চিনি মিলগেটে ৮২ টাকায় কিনে পরিবেশকদের বিক্রি করার কথা ৮৪ টাকায়। ভোক্তাদের কাছে যা হবে ৮৯ টাকায়।

মালিবাগ বাজারে চিনি কিনতে এসে বেসরকারি চাকরিজীবী মো. সাকিব মোল্লা বলেন, এ দেশে দাম বাড়তে সময় লাগে না। কিন্তু কমতে অনেক সময় লেগে যায়। সরকার দাম বেঁধে দিলেও তা মানা হয় না। এর আগেও চাল ও আলুর বেলায় দেখেছি। আজ থেকে কম দামে চিনি পাওয়ার কথা থাকলেও কিনতে হচ্ছে আগের বেশি দামেই।

কদমতলী এলাকার মায়ের দোয়া হোটেলের কর্ণধার মো. কবির বলেন, সরকার পাম তেল ও চিনির দাম কমিয়ে নির্ধারণ করে দেওয়ায় খুশি হয়েছিলাম। কিন্তু বাজারে এখনো তার সুফল পাচ্ছি না। পণ্য দুটির দাম কমলে ব্যবসায় খরচ কিছুটা কমত। কিন্তু আজ বাজারে এসে দেখি দাম কমেনি।

প্রসঙ্গত, গত ৩০ আগস্ট বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানায়, চাল, আটা, ময়দা, ভোজ্যতেল, চিনি, মসুর ডাল, সিমেন্ট, রডসহ মোট ৯ পণ্যের দাম নির্ধারণ করে দেবে সরকার। এসব পণ্যের যৌক্তিক দাম কত হওয়া উচিত, তা ঠিক করা হবে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে। সম্প্রতি ট্যারিফ কমিশন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে একটি প্রতিবেদন পাঠায়। এর আলোকে পাম তেল ও চিনির দাম নির্ধারণ করেছে মন্ত্রণালয়।

advertisement