advertisement
advertisement
advertisement
advertisement

যৌন নির্যাতনের শিকার ৮.৯ শতাংশ শিশু
আইনের শাসন নিশ্চিতে কঠোর হতে হবে

২১ নভেম্বর ২০২২ ১২:০০ এএম
আপডেট: ২০ নভেম্বর ২০২২ ১১:৪৯ পিএম
advertisement

বাংলাদেশে ১৮ বছরের কম বয়সী প্রায় সব শিশু নানাভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। বাসায় মা-বাবার কাছে, ¯ু‹লে, কোচিংয়ে, এমনকি কর্মজীবী শিশুরা কর্মস্থলে নির্যাতনের শিকার হয়। এ ছাড়া প্রায় ৮.৯ শতাংশ শিশু যৌন নির্যাতনের শিকার হয়। ৮২ শতাংশ শিশু অবহেলারও শিকার হয়। সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) পাবলিক হেলথ অ্যান্ড ইনফরমেটিক্স বিভাগের গত পাঁচ বছরের একাধিক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে।

advertisement

আমরা মনে করি এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে শিশুদের জন্য সুরক্ষাব্যবস্থা শক্তিশালী করার বিষয়টি অগ্রাধিকার দিয়ে বিবেচনা করতে হবে। বাংলাদেশে শিশু সুরক্ষায় পর্যাপ্ত আইন রয়েছে।

advertisement 4

সে ক্ষেত্রে শিশুদের প্রতি সহিংসতা বন্ধে প্রচলিত আইনের বাস্তবায়ন ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি। এ ছাড়া শিশুর উন্নয়ন ও কল্যাণে বিনিয়োগ প্রয়োজন। সে ক্ষেত্রে জাতীয় বাজেটে শিশুদের জন্য সামাজিক সুরক্ষায় বরাদ্দ বৃদ্ধির কোনো বিকল্প নেই।

আজকের শিশুই দেশের ভবিষ্যৎ- এ কথা মাথায় রাখতে হবে। শিশুর প্রতি সহিংসতা বা নির্যাতন সাময়িক কোনো বিষয় নয়, এর দীর্ঘমেয়াদি ফলাফলও আছে। শিশুরা যদি সঠিকভাবে বেড়ে ওঠে, সেটা যেমন দেশের জন্য মঙ্গলকর, তেমনি শিশুরা সহিংসতা বা নির্যাতনের শিকার হলে তা নানারকম নেতিবাচক পরিণতি বয়ে আনতে পারে।

একটা রাষ্ট্র-সমাজ কতটা মানবিক, কতটা সংবেদনশীল, তা অনেকটাই বোঝা যায় শিশুদের প্রতি আচার-আচরণ, বিবেচনাবোধ এবং গুরুত্ব প্রদানের বিষয়টি থেকে। আমরা যদি সত্যিই একটি মানবিক রাষ্ট্র ও সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে চাই, তা হলে শিশুদের প্রতি সব ধরনের সহিংসতা ও নির্যাতন বন্ধের অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করতে হবে।

advertisement