কুম্ভমেলা থেকে পুরো ভারতে করোনা ছড়ালো যেভাবে

অনলাইন ডেস্ক
১১ মে ২০২১ ১২:৫০ | আপডেট: ১১ মে ২০২১ ১৮:১৭
আয়োজকরা জানিয়েছেন, কুম্ভ মেলাকে কেন্দ্র করে এবার ৯১ লাখ তীর্থযাত্রী হরিদ্বারে গিয়েছিলেন। সংগৃহীত ছবি

ভারত যখন করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে ব্যস্ত, তার মধ্যেই দেশটির হিমালয় অঞ্চলের হরিদ্বারে কুম্ভমেলায় লাখো ধর্মপ্রাণ হিন্দু সমবেত হয়েছিলেন। তখন অনেকেই আশঙ্কা করেছিলেন, এ মেলাই ব্যাপক হারে করোনাভাইরাস ছড়ানোর এক অনুষ্ঠানে পরিণত হতে যাচ্ছে।

তা-ই সত্য হয়েছে। কুম্ভমেলা থেকে ফিরে আসা লোকজনকে পরীক্ষা করে কোভিড সংক্রমণ ধরা পড়ছে এবং তারা যে সম্ভবত আরও লোকজনের মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়ে দিয়েছে সেরকম খবর আসছে ভারতের অনেক এলাকা থেকে।

দেশটির একজন খ্যাতনামা রোগতত্ত্ববিদ ডা. ললিত কান্ত বিবিসিকে বলছেন, ‘মাস্ক না পরে তীর্থযাত্রীদের বড় বড় দল যখন নদীর তীরে দাঁড়িয়ে গঙ্গার বন্দনা করছে, তখন আসলে এটি দ্রুত ভাইরাস ছড়ানোর এক আদর্শ পরিবেশ তৈরি করছে। আমরা জানি, গির্জায় কিংবা মন্দিরে যখন সমবেত মানুষ এক সঙ্গে কোরাসে গান গায়, সেটি তখন একটি 'সুপার-স্প্রেডার ইভেন্টে' পরিণত হয়।’

হরিদুয়ারের একজন  কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সেখানে ২৬৪২ জন তীর্থযাত্রী কোভিড-পজিটিভ বলে ধরা পড়েছিলেন, যাদের মধ্যে কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় ধর্মীয় নেতাও ছিলেন। উত্তর প্রদেশের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব, নেপালের সাবেক রাজা জ্ঞানেন্দ্র শাহ এবং সাবেক রাণী কমল শাহ এই কুম্ভমেলা থেকে ফিরে আসার পর পরীক্ষা করে তারাও কোভিডে আক্রান্ত বলে জানা গেছে।

এ ছাড়া বলিউডের সঙ্গীত পরিচালক শ্রাবণ রাঠোরও এই কুম্ভমেলা থেকে ফেরার কদিন পর মুম্বাইয়ের এক হাসপাতালে মারা যান। মেলায় যোগ দিতে যাওয়া আরেকটি দলের নয় জন হিন্দু ঋষি মারা যান।

খুব কম রাজ্যেই আসলে কুম্ভ মেলায় যাওয়া লোকজনের কোনো তালিকা আছে এবং কোনো রাজ্যেই এমন নিশ্ছিদ্র কোনো ব্যবস্থা নেই যেটি দিয়ে তাদের সীমান্ত দিয়ে কে ঢুকছে আর কে বেরুচ্ছে সেটার ওপর নজর রাখা যাবে।

মধ্যপ্রদেশের একটি শহরে কুম্ভমেলা থেকে ফেরা ৬১ জনের মধ্যে ৬০ জনের, অর্থাৎ ৯৯ শতাংশই কোভিড-পজিটিভ পাওয়া গেছে পরীক্ষায়। কর্মকর্তারা এখন কুম্ভমেলা থেকে ফেরা আরও ২২ জনকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন।

ডা. ললিত কান্ত  বলেন, ‘এই সংখ্যাগুলো আসলে ভাসমান বরফখণ্ডের চূড়া মাত্র। এই তীর্থযাত্রীরা যখন দলবেঁধে ভিড়ের মধ্যে ট্রেনে-বাসে ভ্রমণ করছে, তখন কিন্তু তারা সংক্রমণের হার বাড়িয়ে দিচ্ছে কয়েকগুণ। আমি কোনো দ্বিধা ছাড়াই বলতে পারি, ভারতে যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এত বাড়ছে, তার একটা প্রধান কারণ এই কুম্ভ মেলা।’

ভারতে যখন প্রতিদিন সংক্রমণের সংখ্যা ব্যাপক হারে বাড়ছে, হাসপাতালগুলোতে বেড খালি নেই বলে এবং অক্সিজেন ও ওষুধের সংকটের কারণে রোগীদের ফিরিয়ে দিতে হচ্ছে- তখন কুম্ভ মেলা বাতিল করাটা উচিত ছিল কিনা, এমন প্রশ্নে অংশগ্রহণকারীরা পাল্টাপাল্টি প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন- ‘সরকার যে পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন করছে, নির্বাচনী সভা করছে, সেটা তাহলে কীভাবে ঠিক হচ্ছে? আমাদের মতো ধর্মপ্রাণরা একসঙ্গে হলে সেটার বেলাতেই কেন শুধু ভুল ধরা হচ্ছে?’

সমালোচকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যে এই কুম্ভ মেলা বাতিল করতে চাননি, তার কারণ এটি করলে সম্ভবত তিনি ধর্মীয় নেতাদের দিক থেকে তোপের মুখে পড়তেন। এই হিন্দু পুরোহিত, ঋষি এবং গুরুরা বিজেপির বড় সমর্থক। তারা নির্বাচনের সময় হিন্দু ভোট জোগাড় করে দিতে বড় ভূমিকা রাখে।

কুম্ভ মেলার জন্য ১২ই এপ্রিল ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ এক দিন। সেদিন গঙ্গা নদীতে স্নান করেছেন তিরিশ লাখের বেশি মানুষ। হিন্দুদের বিশ্বাস, এই গঙ্গাস্নানের মাধ্যমে তারা ‘মোক্ষলাভ’ করবেন। আর সেদিন ভারতে ১ লাখ ৬৮ হাজার মানুষের কোভিড সংক্রমণ ধরা পড়ে। সংক্রমণের সংখ্যার দিক থেকে সেদিন ভারত ব্রাজিলকে ছাড়িয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে চলে আসে।

কুম্ভমেলার আয়োজকরা জানিয়েছিলেন, ৯১ লাখ তীর্থযাত্রী এবার হরিদুয়ারে গিয়েছিলেন। অথচ উত্তরাখণ্ডে হাইকোর্ট বলেছিল, একটা ভয়ঙ্কর মহামারির মধ্যে এই মেলার আয়োজন করতে দিয়ে এই রাজ্যটি সবার হাসির পাত্রে পরিণত হয়েছে। মেলার শুরু থেকেই এমন আশঙ্কা ছিল, এটির আয়োজন করা মানে অনেক ঝুঁকি ডেকে আনা।

মার্চের শুরুতেই স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা সরকারকে হুঁশিয়ারি দিতে থাকেন, এক নতুন এবং অনেক বেশি সংক্রামক ধরণের করোনাভাইরাস ভারতে ছড়িয়ে পড়ছে। তারা আরও বলেছিলেন, লাখ লাখ মানুষকে মাস্ক ছাড়া এরকম এক উৎসবে সমবেত হতে দেওয়া মোটেই বাস্তব-বুদ্ধিসম্মত কাজ হবে না।

এই মেলা হতে দিয়ে ভারতের যে ক্ষতি হয়ে গেছে, এরপর এখন ভারত কী করতে পারে, এমন প্রশ্নের জবাবে ডা. ললিত কান্ত বলেন, ‘কেউ একজন বলেছিলেন, পূণ্যার্থীরা এই করোনাভাইরাসকে ঈশ্বরের প্রসাদ হিসেবে নিয়ে যাবে এবং সবার মধ্যে বিলিয়ে দেবে। তীর্থযাত্রীরা যে এই সংক্রমণ সর্বত্র বহন করে নিয়ে গেল, সেটা আসলেই এক ট্র্যাজিক ঘটনা। এই ভুল সংশোধন করার জন্য করার মতো কিছু আছে বলে আমি ভাবতে পারছি না। আমাদের জাহাজ সাগরের অনেক গভীরে ভেসে গেছে। আমরা এখন আর নিরাপদে বন্দরে ফিরে আসতে পারবো না। এটা খুবই দুঃখজনক এক ঘটনা। আমি এখন কেবল প্রার্থনা করছি, লোকজনের অসুস্থতা যেন অল্পের ওপর দিয়ে যায় এবং তারা যেন সুস্থ হয়ে উঠে।’